চীনা শিক্ষার্থীদের ওপর কড়াকড়ি আরোপ অস্ট্রেলিয়ার

করোনাভাইরাস আতঙ্ক

চীনা শিক্ষার্থীদের ওপর কড়াকড়ি আরোপ অস্ট্রেলিয়ার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:১২ ২৮ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাসের ঠেকাতে অস্ট্রেলিয়ায় চীনা শিক্ষার্থীদের ওপর কড়াকড়ি আরোপ করেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। এছাড়া চীনা শিক্ষার্থীদের থেকে অন্যদের আলাদা রাখার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির কয়েকটি স্কুল।

ব্রিসবেনে অবস্থিত এক বোর্ডিং স্কুল ১০ জন চীনা শিক্ষার্থীর অভিভাবকদের জানিয়েছে, তাদের স্কুলে পাঠানোর আগে অন্তত দুই সপ্তাহ অন্যান্য শিক্ষার্থীদের থেকে আলাদা রাখা হবে। এছাড়া, প্রতিদিন তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে।

সিডনির স্কুলগুলোতেও একই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেছেন নিউয়িংটন কলেজ, দ্য স্কট কলেজ ও কামবালা স্কুল কর্তৃপক্ষরা। তারা জানিয়েছে, সম্প্রতি যারা চীন ভ্রমণে গিয়েছিলেন তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে চিকিৎসকের ছাড়পত্র লাগবে। তাই ক্লাস শুরুর আগেই তাদের হাসপাতালে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

চিকিৎসকের ছাড়পত্র না পাওয়া পর্যন্ত ছেলেমেয়েদের স্কুলে পাঠাতেও নিষেধ করেছে দেশটির কয়েকটি স্কুল। চলতি সপ্তাহে বড়দিনের ছুটি শেষে স্কুলে ফেরার মুহূর্তেই শিক্ষার্থীদের প্রতি এমন নির্দেশনা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ।

যেসব শিক্ষার্থী ছুটি কাটাতে চীনে গিয়েছিলেন তাদের অন্তত ১৪ দিন বাড়িতেই থাকার নির্দেশ দিয়েছে পিমবেল লেডিস কলেজ। এছাড়া তারা নিজে না গেলেও যদি চীন ফেরত কারো সংস্পর্শে থাকে তাদের জন্যেও একই নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

নিউ সাউথ ওয়েলসের (এনএসডাব্লিউ) প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ড. কেরি চ্যান্ট বলেছেন, এই রোগের আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত উন্মেষপর্ব হলচ্ছে ১৪ দিন। এ সময়ের পর শিশুরা ঝুঁকিমুক্ত হয় বলে ধারণা করা হয়। 

এ পর্যন্ত দেশটিতে অন্তত পাঁচজনের শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে। গত শনিবার মেলবোর্নে এক চীনা নাগরিকের শরীরে এ ভাইরাস ধরা পড়ে। গত ১৯ জানুয়ারি চীনের গুয়াংঝু থেকে ফিরেছেন সে ব্যক্তি। একইদিনে নিউ সাউথ ওয়েলসে আরো তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। এরইমধ্যে দুই জনকে সিডনির ওয়েস্টমেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলেও জানা গেছে। সিডনিতে আক্রান্ত আরেকজন গত বৃহস্পতিবার উহান থেকে অস্ট্রেলিয়া ফিরেছেন।

সূত্র- দ্য ডেইলি মেইল

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএমএফ