Alexa চাল নিয়ে চালবাজি

চাল নিয়ে চালবাজি

সুলতান মাহমুদ, দিনাজপুর ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৪:৩৬ ২৬ অক্টোবর ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

দিনাজপুরের খানসামার ২নং ভেড়ভেড়ী ইউপিতে ভিজিডির চাল নিয়ে চালবাজির প্রমাণ পাওয়া গেছে চেয়ারম্যান হাফিজ সরকারের বিরুদ্ধে।

৪২৩ বস্তা সরকারি চাল বাজার থেকে বদল করে নিম্নমানের চাল এনেছেন ইউপি চেয়ারম্যান। ভালো মানের চালের পরিবর্তে দুর্গন্ধযুক্ত চাল বিতরণ করেছেন তিনি। ভুক্তভোগীদের এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্তে নেমে সত্যতা পেয়েছে উপজেলা প্রশাসনের তিন সদস্যের কমিটি।

তদন্ত প্রতিবেদন ইউএনও’র কাছে জমা দিয়েছেন কমিটির সদস্যরা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ২৪ সেপ্টেম্বর খানসামা খাদ্য গুদাম থেকে ৩৬ টাকা কেজির আমন গুটি স্বর্ণ জাতের ৪২৩ বস্তা চাল উত্তোলন করেন ভেড়ভেড়ী ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজ সরকার। পরের দিন ওই চালের পরিবর্তে ১৮ টাকা কেজির মোটা জাতের হাইব্রিড বোরো চাল বিতরণ করেছেন তিনি।

চাল নিয়ে চালবাজিতে ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগী ছিলেন ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোজাহারুল ইসলাম বাবুল, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ফজলে রাব্বী রানা।

তদন্ত কমিটির এক কর্মকর্তা বলেন, খানসামা খাদ্য গুদাম থেকে ভিজিডির ৪২৩ বস্তা চাল নিয়ে স্থানীয় টঙ্গুয়া বাজারের রফিকুল ইসলামের হাসকিং মিলে বিক্রি করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজ সরকার। সেখান থেকেই নিম্নমানের চাল সংগ্রহ করে দুইজন ইউপি সদস্যের যোগসাজশে সুবিধাভোগীদের মধ্যে বিতরণ করেছেন তিনি।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মোজাহারুল ইসলাম বাবুল বলেন, চাল বিতরণে প্রতারণার সঙ্গে আমি জড়িত নই। আমাকে জড়ানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আমি লিখিতভাবে জবাব দিয়েছি।

অভিযুক্ত আরেক ইউপি সদস্য ফজলে রাব্বী রানা বলেন, সরকারি গোডাউন থেকে চেয়ারম্যানের নামে ডিও হয়। সেই চাল খাদ্য গুদাম থেকে গ্রাম পুলিশের সদস্যরা উত্তোলন করেছেন। আমাদের অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই।

ভেড়ভেড়ী ইউপি চেয়ারম্যান মো. হাফিজ সরকার বলেন, যে চাল গোডাউন থেকে এনেছি, সে চালই সবাইকে দিয়েছি। এ বিষয়ে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে আমি লিখিতভাবে জবাব দিয়েছি।

খানসামার ইউএনও আহমেদ মাহবুব-উল ইসলাম বলেন, নিম্মমানের ও কম দামের চাল বিতরণের বিষয়ে ভেড়ভেড়ী ইউপি চেয়ারম্যান, দুজন ইউপি সদস্য ও একজন মিল মালিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি। তাৎক্ষণিকভাবে তিন সদস্যের কমিটি করে অভিযোগের তদন্ত করা হয়েছে। তাদের অভিযোগ শতভাগ প্রমাণিত হয়েছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর