Alexa চশমার কারণেই ধরা পড়লেন সন্তান হত্যাকারী সেই মা!

৬০ দিনের মেয়েকে হত্যা

চশমার কারণেই ধরা পড়লেন সন্তান হত্যাকারী সেই মা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৩:১৫ ২৮ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

সন্তান লালনপালন করতে করতে বিরক্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। আর তাই দুই মাসের ওই শিশুকন্যাকে খুন করেন মা সন্ধ্যা মালো। আবার এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে মিথ্যা গল্পও সাজান তিনি! অবশেষে চশমা ও সিসিটিভি ফুটেজ কাল হয়ে দাঁড়ালো অভিযুক্ত সন্ধ্যার। 

ভারতের বেলেঘাটা থানার তদন্তকারী পুলিশ শিশুর মরদেহটি উদ্ধারের পর তদন্তে বেরিয়ে আসে আসল ঘটনা। সেই ঘটনা প্রকাশ্যে এনেছে ভারতের গোয়েন্দা পুলিশ।

গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, শিশুকে অপহরণের প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে সন্ধ্যা ছাড়া ফ্লাটের আর কাউকেই পায়নি পুলিশ। অথচ বেলেঘাটার ‘মল্লার আবাসন’ একেবারে বড় সড়কের ধারে জনবহুল একটি এলাকা। আবাসনে সিসিটিভি না থাকায় সড়কের সিসিটিভির সাহায্য নেয় পুলিশ। ‘মল্লার' আবাসনের বামদিকে এটিএম কাউন্টার লাগোয়া সিসিটিভি, ডানদিকে ফুলবাগান মোড়ে ডিসিইএসডি অফিসের সামনে সিসিটিভি দুই সিসিটিভির ফুটেজ খতিয়ে দেখে পুলিশ।

পাশাপাশি সন্ধ্যার দেয়া জবানবন্দীতে সন্দেহ হওয়ায় রাতে সন্ধ্যার ফ্ল্যাটে পুলিশের তল্লাশি শুরু হয়। উদ্ধার হয় সন্ধ্যার অক্ষত চশমা। এসময় পুলিশ জানতে চায় ২৬ জানুয়ারি হামলার সময় সন্ধ্যার পরনে কী ছিল? আক্রান্ত হওয়ার সময় তার চোখে চশমা ছিল বলে জানিয়েছিলেন সন্ধ্যা। তার অভিযোগ অনুযায়ী, যুবক ঘরে ঢুকেই তাকে ঘুষি ও চড় মারে। তারপর ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। এরপরই পুলিশের প্রশ্ন, এতো ধস্তাধস্তিতেও চশমা অক্ষত রইল কীভাবে? তাতেই স্তব্ধ হয়ে যান তিনি। সবমিলিয়ে সন্ধ্যার বয়ানে একের পর এক অসংগতি লক্ষ্য করা যায়। শেষমেশ জেরায় ভেঙে পড়েন সন্ধ্যা।

সোমবার দুপুরে ভারতের শিয়ালদহ কোর্টে তোলা হয় দুই মাসের সন্তানকে খুনে অভিযুক্ত সন্ধ্যা মালোকে। তার হয়ে আদালতে দাঁড়াতে রাজি হননি কোনো আইনজীবীই। ফলে সরকারি কৌসুলি নিজের বক্তব্য রাখা শুরু করেন। প্রায় ৩০ মিনিট ধরে গোটা ঘটনাক্রম বিচারককে বুঝিয়ে বলেন তিনি। গোটা সময়টা মাথা নিচু করে এজলাসে দাঁড়িয়ে ছিলেন সন্ধ্যা। ঘটনার বিবরণ শুনে অবাক হয়ে যান বিচারপতিও। এরপরই সন্ধ্যাকে সাতদিন পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস