ঘুমিয়ে কেটে গেল ১০ কোটি বছর!

ঘুমিয়ে কেটে গেল ১০ কোটি বছর!

বিজ্ঞান ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৯:২৯ ৩০ জুলাই ২০২০   আপডেট: ০৯:৩৫ ৩০ জুলাই ২০২০

ছবি: জাকার্তা পোস্ট।

ছবি: জাকার্তা পোস্ট।

১০ কোটি বছর অর্থ্যাৎ ১০০ মিলিয়ন বছর ঘুমিয়ে থাকা জীবাণুর খোঁজ পাওয়ার দাবি করছেন জাপানের বিজ্ঞানীরা। ওই জীবাণু সাউথ প্যাসিফিক সমুদ্রের তলদেশে সুপ্ত অবস্থায় বেঁচে ছিল।

বিজ্ঞানীদের দাবি, সমুদ্রের তলদেশে খাবারের প্রবল অভাব রয়েছে। তবে সেখানে বেঁচে থাকার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণের অক্সিজেন রয়েছে।

জীবাণুরা হচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষুদ্র প্রজাতির জীব। এরা কঠিন প্রতিকূলতায় বেঁচে থাকতে পারে। আবার অনেক শক্তিশালী জীবাণু বেঁচে থাকতে পারে না।

বিজ্ঞানীরা সুপ্ত জীবাণুকে ইনকিউবিউট করেন। এতে জীবাণুগুলো খাদ্যগ্রহণ ও সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে।

জীবাণুর প্রতীকী ছবি।

এ গবেষণা জাপানের অ্যাজেন্সি সমুদ্র-পৃথিবী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির দ্বারা পরিচালিত হয়েছে। আর এ গবেষণা জার্নাল নেচার কমিউনিকেশনে প্রকাশ করা হয়েছে।

গবেষকদের প্রধান ইউকো মরোনো এএফপিকে বলেন, আমি যখন তাদের পাই, তখন সন্দেহ হয়েছিল।  এগুলোকে প্রথমে ভুল বা গবেষণার ব্যর্থতা ভেবেছিলাম। কিন্তু এখন আমরা জানতে পারলাম যে, সমুদ্রের তলদেশের জীবমণ্ডলের কোনো বয়সের সীমা নেই।

গবেষণার সহ রচয়িতা ও ইউনিভার্সিটি অব রদ আইল্যান্ডের প্রফেসর স্টিভেন ডি হন্ট বলেন, সমুদ্রের তলদেশ থেকে সংগ্রহ করা সবচেয়ে বয়স্ক নমুনা থেকে জীবাণুগুলোকে পাওয়া গেছে। প্রাচীনতম পলিতে খুঁড়ি আমরা। সেখানে পর্যাপ্ত খাবার দিতেই জীবাণু বেঁচে থাকার বিষয়টি ধরা পড়ে। এতে তারা জেগে উঠে বংশ বৃদ্ধি শুরু করে।

আগের গবেষণায় দেখা গেছে, কিভাবে প্রতিকূল পরিবেশে ব্যাকটেরিয়া বসবাস করছে। এমনকি সমুদ্রের তলদেশের ফাঁকে অক্সিজেন ছাড়াও বেঁচে থাকতে পারে।

মরোনো বলেন, নতুন জীবাণু দেখিয়েছে যে, পৃথিবীর কিছু সাধারণ জীবনযাত্রার কাঠামোর "বাস্তবে জীবনকালের ধারণা নেই।

সূত্র- বিবিসি।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ