Alexa গুপ্তচরবৃত্তির সন্দেহে জার্মান দূতাবাস কর্মীকে আটক করলো তুরস্ক

গুপ্তচরবৃত্তির সন্দেহে জার্মান দূতাবাস কর্মীকে আটক করলো তুরস্ক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:২৯ ২১ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৫:৩৩ ২১ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

গুপ্তচরবৃত্তির সন্দেহে আঙ্কারায় অবস্থিত জার্মান দূতাবাসে কর্মরত এক তুর্কি আইনজীবীকে আটক করেছে তুরস্ক।

বুধবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডের স্পিগেল এমন তথ্য দিয়েছেন।

একটি জার্মান কূটনৈতিক সূত্র এজেন্স ফ্রান্স-প্রেসকে বলেছিল যে আইনজীবী "আন্তর্জাতিকভাবে প্রথাগত এবং আমাদের দৃষ্টিতে নির্বিচারে গ্রহণযোগ্য সমর্থন দিয়েছিলেন।"

জার্মান সরকার উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যে তুরস্ক কর্তৃপক্ষ তুরস্কের ৫০ জন আশ্রয় প্রার্থী সম্পর্কে সংবেদনশীল তথ্য সংগ্রহ করেছে। যার মধ্যে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কুর্দিশ কর্মী এবং গলেন আন্দোলনের সমর্থকরা রয়েছে।

২০১৬ সালে এরদোগানকে উৎখাতে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানের পর বিরোধীদের ওপর সরকারের ধরপাকড়ের সমালোচনা করার পর দেশ দুটির মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটেছে। এছাড়া উত্তর সিরিয়ায় কুর্দিবিরোধী অভিযানেরও ঘোর সমালোচনার সম্মুখীন হয় জার্মানি।

জার্মান দূতাবাসের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ওই আইনজীবীর বিরুদ্ধে অভিযোগ কী, তার বের করতে আমরা নিবিড়ভাবে কাজ করছি। তার বিরুদ্ধে রিমান্ড উঠিয়ে নিতেও জোর চেষ্টা চালাচ্ছি। তবে তাকে কেন আটক করা হয়েছে তা আমাদের বোধগম্য নয় বলে দাবি করেন তিনি।

গত মধ্য সেপ্টেম্বরে ওই আইনজীবীকে আটক করা হয়েছে বলে খবরে দাবি করা হয়েছে। জার্মানিতে আশ্রয় চাওয়া তুর্কিশ নাগরিকদের তথ্য নিতে ওই আইনজীবীকে ভাড়া করেছিল জার্মান দূতাবাস।

এরদোগানের বিরুদ্ধে ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর জার্মানিতে রাজনৈতিক আশ্রয় চাওয়া তুর্কিশদের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বেড়ে গেছে। তুর্কি প্রেসিডেন্টের দাবি, তুরস্কের প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে গভীরভাবে জড়িত ফেতুল্লাহ গুলেনের সমর্থনে এই অভ্যুত্থান হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ