Alexa গাড়ি চললেও শব্দ দূষণ হবে না

গাড়ি চললেও শব্দ দূষণ হবে না

ডেস্ক নিউজ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৫৫ ১২ মে ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

রাস্তায় গাড়ি চলবে কিন্তু শব্দ থাকবে সহনীয়। এই লক্ষ্যে ডেনমার্কে ভিন্নধর্মী এক উপায় তৈরি হয়েছে। রাস্তায় এমন এক উপকরণ ব্যবহার করা হয়েছে যা শব্দ কমাতে সহায়ক।

বেলজিয়ান রোড রিসার্চ সেন্টার, লুক গুবার্ট বলেন, গাড়ি চলাচলের সময় শব্দ দূষণ কমাতে চাইলে রাস্তার উপরিভাগে পরিবর্তন এনে টায়ারের শব্দ কমানোর চেষ্টা করতে হবে। এক্ষেত্রে তিনটি প্যারামিটার রয়েছে, রাস্তার বুনট, তাপমাত্রা শোষণ ক্ষমতা এবং রাস্তার স্থিতিস্থাপকতা। তৃতীয়টি নিয়েই বেশি কাজ করতে হবে।

ইউরোপীয় এক গবেষণা প্রকল্পের আওতায় তৈরি করা রাস্তার স্থিতিস্থাপকতা লেয়ার শব্দ দূষণ অনেক কমিয়ে দেয়। এতে প্রায় ৮ ডেসিমল পরিমাণ শব্দ দূষণ কমে যায়। অন্য উপায়ে এই শব্দ দূষণ কমাতে হলে প্রায় ৩ মিটার উঁচু দেয়াল বসাতে হবে।

বৃষ্টি হলে যেন এই উপকরণ দিয়ে তৈরি রাস্তায় গাড়ি চলাচলে কষ্ট না হয় তা এই গবেষণাগারে পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।

বেলজিয়ান রোড রিসার্চ সেন্টারের ল্যাবরেটরি টেকনিশিয়ান আনেট নাইডেল জানিয়েছেন, গাড়ির পুরোনো টায়ার থেকে পাওয়া রাবার আর গ্রানাইটের গুঁড়া আর পলি ইউরেচিন আঠা যুক্ত করে এই উপকরণ তৈরি করা হয়েছে।

রিসাইকেল করা টায়ার দিয়ে রাস্তার উপরিভাগ ঢেকে দেয়ার পরিকল্পনা নতুন নয়। কিন্তু স্থায়ীত্ব ও খরচের বিবেচনায় সেগুলো তেমন সফল হয়নি।

গবেষক হান্স বেন্ডটসেন বলেছেন, এমন এক উপকরণ তৈরির চেষ্টা করছি যা রাস্তার শব্দ দূষণ কমাবে। স্থায়ী হবে আর দাম হবে কম।

নিরাপত্তার জন্য ঘর্ষণের বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। সুইডেনের একটি রাস্তায় তা পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। শীতের সময় আলকাতরার চেয়ে এই উপকরণের উপর দিয়ে চলাচল বেশি নিরাপদ বলে গবেষণায় দেখা গেছে।

গবেষক উলফ স্যান্ডব্যার্গ বলেন, সাধারণ আলকাতরার চেয়ে এই বিশেষ বস্তু দিয়ে তৈরি রাস্তার খরচ আরো বেশি। তবে যেখানে শব্দদূষণ কমাতে দেয়াল ব্যবহার করা হবে যেখানে এই পদ্ধতিটি বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা যায়। কেননা দেয়াল দিতে এর চেয়ে বেশি খরচ হবে।

প্রকৌশলী বিয়র্ন কালমান জানিয়েছেন, সাধারণ আলকাতরার মতোই এটি টেকশই। এছাড়া এই উপকরণ কি পরিমাণ ধূলা তৈরি করতে পারে তাও গবেষণায় জানার চেষ্টা চলছে। দেখা যাচ্ছে, আলকাতরার চেয়ে কম ধূলাই উৎপন্ন হচ্ছে।

শব্দ কম, নির্ভরযোগ্য আর পরিবেশবন্ধব নিকট ভবিষৎতে বেড়ার বিকল্প হিসেবে গড়ে উঠবে বলে আশা গবেষকদের।  

সূত্র: ডয়চে ভেলে। 
গ্রন্থণা: স্বরলিপি

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে