গল্পটা একজন প্লেব্যাক সম্রাটের

গল্পটা একজন প্লেব্যাক সম্রাটের

নাজমুল আহসান ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২১:০৯ ৬ জুলাই ২০২০   আপডেট: ২১:১২ ৬ জুলাই ২০২০

এন্ড্রু কিশোর

এন্ড্রু কিশোর

‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুশ, দম ফুরাইলে ঠুস’- সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের কথায় ও আলম খানের সুরে এই গানটি গেয়ে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছিলেন এন্ড্রু কিশোর। আশির দশকের এই গানের পর আর পেছনে তাকাতে হয়নি এন্ড্রু কিশোরকে, নিরবধি চলেছিল প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম। হয়ে ওঠেন চলচ্চিত্রের ‘প্লেব্যাক সম্রাট’।

এন্ড্রু কিশোর আব্দুল আজিজ বাচ্চুর অধীনে প্রাথমিকভাবে সংগীত চর্চা শুরু করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর কিশোর নজরুল, রবীন্দ্রনাথ, আধুনিক, লোক ও দেশাত্মবোধক গান শ্রেণিতে রাজশাহী বেতারের সঙ্গে তালিকাভুক্ত ছিলেন।

তার প্রথম প্লেব্যাক আলম খানের সুরে ‘তুফান মেইল’ চলচ্চিত্রে। এরপর প্রতীক্ষা, এমিলের গোয়েন্দাবাহিনীর পর নিজের ক্যারিয়ারের শুভ সূচনা হয় ১৯৮২ সালে ‘বড় ভালো লোক ছিল’ সিনেমা দিয়ে। এই সিনেমার ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুশ’র জনপ্রিয়তা পাশাপাশি প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। কিংবদন্তী সুরকার আলম খানও এই সিনেমা দিয়ে প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। এই জুটির আরেক সাড়া জাগানো গান ‘তুমি যেখানে আমি সেখানে’।

‘আমার সারা দেহ খেয়ে গো মাটি থেকে আমার বুকের মধ্যিখানে’ গান বেজে উঠলেই মনে পড়ে যায় জাফর ইকবালের ‘নয়নের আলো’ সিনেমার কথা। বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম সেরা জনপ্রিয় গানের এই সিনেমার প্রতিটি গান ব্যাপক সাড়া ফেলে। আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের কথা ও সুরে এই সিনেমার সব কয়েকটি গানে কণ্ঠ দেন এন্ড্রু কিশোর। জাফর ইকবালের লিপে এন্ড্রু কিশোর আরেক জনপ্রিয় গান ‘চাঁদের সাথে আমি দেবো না তোমার তুলনা’।

আশির দশকে ইলিয়াস কাঞ্চনের কন্ঠে তিনি দারুণ মানিয়ে নিয়েছেন, এই জুটি অসংখ্য জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন। সহযাত্রী সিনেমায় ‘পৃথিবীর যত সুখ’ থেকে ইন্ডাস্ট্রির সবচেয়ে ব্যবসা সফল সিনেমা ‘বেদের মেয়ে জোছনা’র সাড়া জাগানো টাইটেল গানটিও  গেয়েছিলেন এন্ড্রু কিশোর। এছাড়া ‘ভাই বন্ধু’ সিনেমার ‘ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা’ গানটি তো রয়েছেই, তবে বিশেষ ভাবে উল্লেখ করতে হয় বিখ্যাত সিনেমা ভেজা চোখ এর ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’ গানটির কথা। 

বাংলা চলচ্চিত্রে সঙ্গীতের দিক দিয়ে আরেক যুগান্তকারী সিনেমা ‘দুই জীবন’। জাতীয় পুরস্কার জয়ী এই সিনেমার জনপ্রিয় গান ‘আমি একদিন তোমাকে না দেখলে’ থেকে শ্রুতিমধুর গান ‘তুমি আজ কথা দিয়েছো’ গান কণ্ঠে ধারণ করেছিলেন এন্ড্রু কিশোর। এন্ড্রু কিশোর ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান ‘স্যারেন্ডার’ সিনেমার ‘সবাই তো ভালোবাসা চায়’ গানটা গেয়ে।

‘ভালোবেসে গেলাম শুধু ভালোবাসা পেলাম না, তুমি আমার কত চেনা, তুমি আরো কাছে আসিয়া’- আলমগীর অভিনীত অন্যতম এই সেরা গানগুলিও গেয়েছেন এন্ড্রু কিশোর। আলমগীরের ঠোঁটেই ‘ক্ষতিপূরণ’ সিনেমার ‘এই দুটি ছোট্ট হাতে’র জন্য তৃতীয় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান এই গায়ক।

নব্বই দশকেও এন্ড্রু কিশোর ছিলেন সবচেয়ে জনপ্রিয় গায়ক। ‘অনুতপ্ত’ সিনেমার ‘তুমি এসেছিলে পরশু’ থেকে ‘বিয়ের ফুল’ সিনেমার ‘তোমায় দেখলে মনে হয়’র মতো জনপ্রিয় গানগুলো কন্ঠে ধারণ করেছেন তিনি।

সালমান শাহর ‘অন্তরে অন্তরে’ সিনেমার ‘এইখানে দুইজনে নির্জনে’ থেকে ‘আনন্দ অশ্রু’র ‘তুমি মোর জীবনের ভাবনা’ গানগুলো আজো জনপ্রিয়। ‘স্বপ্নের ঠিকানা’র গানগুলো বেশ সাড়া জাগিয়েছিল। তবে এর মধ্যে ‘তোমাকে চাই’ সিনেমার রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহর কথায় আহমেদ ইমতিয়াক বুলবুলের সুরে এন্ড্রু কিশোরের কণ্ঠে ‘ভালো আছি ভালো থেকো’ গানটি আজো সমান জনপ্রিয়।

ওমর সানি ও পপি অভিনীত কুলি সিনেমার ‘আকাশেতে লক্ষতারা চাঁদ কিন্তু একটাই’ এই গান এন্ড্রু কিশোরে ক্যারিয়ারে আরেক হিট গান। চিত্রনায়ক রিয়াজের ‘প্রানের চেয়ে প্রিয়’ সিনেমার ‘পড়েনা চোখের পলক’ গানটিও এন্ড্রু কিশোরের গাওয়া। এছাড়া ‘তুমি হাজার ফুলের মাঝে’, ‘তুমি চাঁদের জোছনা নও’, ‘ঘুমিয়ে থাকো গো স্বজনী’, ‘না বলো না’ তো রয়েছেই। 

শাকিব খানের ক্যারিয়ারে জনপ্রিয় গান ‘আমার হৃদয় একটা আয়না’র গায়কও এন্ড্রু কিশোর। এছাড়া ‘কিছু কিছু মানুষের জীবনে’, ‘এক বিন্দু ভালোবাসা দাও’র মতো জনপ্রিয় গানও রয়েছে। এন্ড্রু কিশোর সর্বশেষ জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন শাকিব অভিনীত ‘কি যাদু করিলা’ সিনেমার ‘চক্ষু দুইটা কাজল কালো’ গানের জন্য।

প্লেব্যাকের বাইরে এসে নিয়মিত অ্যালব্যাম, টেলিভিশনেও নিয়মিত গান করতেন এন্ড্রু কিশোর। জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ইত্যাদিতে তার প্রথম গান ‘পদ্ম পাতার পানি নয়’। পরবর্তীতে সংগীত বিষয়ক রিয়েলিটি শোর বিচারকও হয়েছেন। 

প্লেব্যাকে রুনা লায়লা, সাবিনা ইয়াসমিন ও কনকচাঁপার সঙ্গে জুটি বেঁধে অসংখ্য জনপ্রিয় গান গেয়েছেন এন্ড্রু কিশোর।সুরকারদের মধ্যে আলম খান ও আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের সঙ্গে বেশি কাজ করেছেন। এছাড়া আলাউদ্দিন আলী, শেখ সাদী খান থেকে ইমন সাহা সবার সঙ্গে কাজ করে গেছেন তিনি।

১৯৮৬ সালে রাজেশ খান্না ও শাবানা অভিনীত বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনার প্রমোদ চক্রবর্তীর পরিচালনায় ‘শত্রু’ সিনেমায় ও গাস গেয়েছেন এন্ড্রু কিশোর। এ ছবির গানের সুর করেছেন ভারতের খ্যাতিনামা সুরকার আর ডি বর্মন। গানগুলো রেকর্ডিংয়ের সময় স্বয়ং আশা ভোঁসলে হাজির হন স্টুডিওতে। গান দু’টি হলো- ‘ম্যায় তেরা বিসমিল হু’ ও ‘সুরাজ চান্দা সাগার’। গান দুটি বাংলা ভার্শনেও গেয়েছেন এন্ড্রু কিশোর।

গীতিকার হিসেবে গাজী মাজহারুল আনোয়ার,মনিরুজ্জামান মনির, মো: রফিকুজ্জামান থেকে কবির বকুল অনেকের লেখা গানই গেয়েছেন। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে কলকাতাতেও প্লেব্যাকে বেশ কয়েকটি গান করেছেন।

এন্ড্রু কিশোরের জন্ম ১৯৫৫ সালের চার নভেম্বর। বর্নাঢ্য ক্যারিয়ারে উনি সেরা গায়ক হিসেবে সর্বোচ্চ আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন, পাঁচবার বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি (বাচসাস) পুরস্কার, মেরিল প্রথম আলো পুরস্কারসহ দেশে-বিদেশে অসংখ্য পুরস্কার পেয়েছেন। 

গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর যান এন্ড্রু কিশোর। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গত ১৮ সেপ্টেম্বর তার শরীরে নন-হজকিন লিম্ফোমা নামক ব্লাড ক্যানসার ধরা পড়ে। এরপর সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক লিম সুন থাইয়ের অধীনে তার চিকিৎসা শুরু হয়। সেখানে দীর্ঘ নয় মাস চিকিৎসা শেষে গত ১১ জুন দেশে ফেরেন তিনি। এরপর রাজধানীর মিরপুরের বাসায় কয়েকদিন থাকার পর নিরিবিলি সময় কাটানোর জন্য গ্রামের বাড়ি রাজশাহীতে যান। 

রোববার থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। রাজশাহীতেই তারা চিকিৎসা চলছিল। এরপর তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা অবনতি হলে সোমবার দুপুরে বাড়িতে রেখেই তাকে অক্সিজেন সাপোর্ট দেয়া হয়। এরপর সন্ধ্যা ৬ টা৫৫ মিনিটে এপারের মায়া কাটিয়ে ওপারে পাড়ি জমালেন বাংলা চলচ্চিত্রের প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর। তিনি আমাদের মাঝে থাকবেন না কিন্তু তার রেখে যাওয়া কর্ম বাঙালির হৃদয়ে গেথে রবে আজীবন। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এনএ