Alexa গণভবনে পাপন

গণভবনে পাপন

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:২৯ ২৩ অক্টোবর ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে গেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। ২৩ অক্টোবর বুধবার দুপুর ২ টার দিকে তিনি গণভবনে প্রবেশ করেন।

এর আগে, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও ক্রিকেটারদের মধ্যে চলমান দ্বন্দ্ব নিরসনে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে পদক্ষেপ নিতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

গতকাল মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে ডাকা হয় মাশরাফী বিন মুর্তজাকে। সেখানে মাশরাফীর কাছ থেকে ক্রিকেটের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে জানেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর মাশরাফিকে ক্রিকেটারদের মাঠে ফেরার বার্তা দিতে বলেন প্রধানমন্ত্রী। বিসিবির সহসভাপতি মাহবুবুল আনানের বরাতে এ খবর প্রকাশ করে একটি জাতীয় দৈনিক।

দেশের ক্রিকেটাঙ্গনে এখন প্রধান আলোচনার বস্তু এগারো দফা। একদিকে দাবি আদায়ের সিদ্ধান্তে অনড় ক্রিকেটাররা, অন্যদিকে বিসিবি থেকে দেয়া হয়নি দাবি মানার প্রতিশ্রুতি। ঘোলাটে পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে গণভবনে গেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। 
সোমবার মিরপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের এগারো দফা দাবি তুলে ধরেন সাকিব তামিম মুশফিকরা। দাবি না মানা পর্যন্ত সব ধরণের ক্রিকেট থেকে দূরে থাকার ঘোষণা দেন তারা। 

দাবিগুলোর ভেতর উল্লেখযোগ্য ছিল বেতন ভাতা বাড়ানো, চুক্তিভূক্ত ক্রিকেটারের সংখ্যা বাড়ানো, ক্রিকেট বিষয়ক বিভিন্ন ফ্যাসিলিটি বৃদ্ধি করা, আম্পায়ার গ্রাউন্ডসম্যানদের বেতন বৃদ্ধি করা ইত্যাদি। এছাড়া ঘরোয়া ক্যালেন্ডার, ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক লিগে খেলার সুযোগ বৃদ্ধি, কোয়াবের পরিবর্তন সম্পর্কিত দাবিদাওয়াও তুলে ধরেন ক্রিকেটাররা। 

মঙ্গলবার নিজেদের অবস্থান জানাতে সংবাদ সম্মেলন করে বিসিবি। এর আগে নিজেরা দীর্ঘসময় বৈঠকও করে। তবে সংবাদ সম্মেলনে সুস্পষ্ট কোন প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের কথা বলেননি নাজমুল হাসান পাপন। উল্টো এসবের পিছনে ষড়যন্ত্র খুঁজে পান বলে জানান তিনি। ক্রিকেটাররা আসলে আসবে, না আসলে নাই ধরণের উক্তির মাধ্যমে বিদ্যমান সমস্যাকে আরো ঘোলা করে দেন বিসিবি বস। 

অবশেষে বুধবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গণভবনে গেছেন পাপন। এখানে তিনি বর্তমান সমস্যা উত্তরণে করণীয় সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানা গেছে। 

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বিকেলে ক্রিকেটারদের সঙ্গে বসার কথা রয়েছে বিসিবি প্রধানের। সেখান থেকে বর্তমান অবস্থার উন্নতি হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। 

এর আগে সোমবার রাতে ফেসবুক পেজে ধর্মঘট বিষয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেন মাশরাফী। তিনি লেখেন, অনেকেই প্রশ্ন করেছেন যে, দেশের ক্রিকেটের এমন একটি দিনে আমি কেন উপস্থিত ছিলাম না। আমার মনে হয়, প্রশ্নটি আমাকে না করে, ওদের করাই শ্রেয়। এই উদ্যোগ সম্পর্কে আমি একদমই অবগত ছিলাম না। নিশ্চয়ই বেশ কিছু দিন ধরেই এটি নিয়ে ওদের আলোচনা ছিল, প্রক্রিয়া চলছিল। কিন্তু এ সম্পর্কে আমার কোনো ধারণাই ছিল না।

ডেইলি বাংলাদেশ/সালি