খোঁজ পেলেই অসহায়দের পাশে দাঁড়ান শোভন

খোঁজ পেলেই অসহায়দের পাশে দাঁড়ান শোভন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৫৫ ১৩ আগস্ট ২০২০  

শাহাদাৎ হোসেন শোভন

শাহাদাৎ হোসেন শোভন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন শোভন। যিনি একজন মানবিকতা সম্পন্ন ও পরোপকারী ছাত্রনেতা। তার নেই কোনো অহংকার। যেখানে অসহায় মানুষের আর্তনাদ সেখানেই ছুটে যান তিনি। তাদের জন্য কিছু করতে পারলেই যেন মনে শান্তি পান। ছাত্রনেতা হিসেবে সবাই চিনলেও অসহায় ও খেটে খাওয়া মানুষের কাছে শাহাদাৎ হোসেন শোভন একজন মানবতার ফেরিওয়ালা।

শাহাদাৎ হোসেন শোভন ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের কাজীপাড়ার সরকারপাড়া মহল্লার বাসিন্দা ওয়ালি হোসেন মাস্টারের ছেলে। স্কুলশিক্ষক বাবার আদর্শেই গড়ে উঠেছেন তিনি। মাধ্যমিকে পড়ার সময়ই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে হাতেখড়ি তার। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালনের সময় থেকেই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে শুরু করেন শোভন। বর্তমানে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর মানবসেবার পরিধি আরো বাড়ে।

নিরহংকারী এ ছাত্রনেতা রাজনীতির পাশাপাশি জনসেবাও করে যাচ্ছেন। এরইমধ্যে রাজনীতিতে ইমেজ গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন শোভন। তিনি করোনা পরিস্থিতিতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেলকে নিয়ে চষে বেড়িয়েছেন পুরো জেলা। অসহায় মানুষের খোঁজ পেলেই নিজেকে আর স্থির রাখতে পারেন না। ছুটে যান তার কাছে।

শ্রমিকের অভাবে কৃষক যখন ধান কাটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছিলেন তখন এগিয়ে যায় ছাত্রলীগ। রমজান মাসে রোজা রেখে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে অসহায় কৃষকের ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দেন শাহাদাৎ হোসেন শোভন।

নবীনগর উপজেলার রসুল্লাবাদ গ্রামের বাসিন্দা হানিফ মিয়ার টিনের ঘরটি জরাজীর্ণ হয়ে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। পরে নিজ উদ্যোগে তাকে নতুন ঘর করতে তিন বান টিন কেনে দেন ছাত্রলীগের এই নেতা।

পিইসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশন এলাকায় বাবার সঙ্গে চায়ের দোকানে কাজ করা শিশু বিশাল। এরপর আর্থিক কারণে তার পড়াশোনা অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। পরে বিশালকে পৌর এলাকার অঙ্কুর-অন্বেষা বিদ্যাপীঠে ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি করে দিয়ে সব দায়িত্ব নেন শোভন।

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে অসহায় পরিবার ও শিশুদের মাঝে অর্থ ও নতুন কাপড় বিতরণ করেন শাহাদাৎ হোসেন শোভন। এভাবে প্রায় প্রতিদিনই অসহায়দের পাশে দাঁড়ান তিনি।

এ ব্যাপারে আখাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন নয়ন বলেন, শোভন আমাদের অভিভাবক। ছাত্রলীগের আইকন। তিনি মানবতার ফেরিওয়ালা। তার মতো নেতার সঙ্গে কাজ করতে পেরে আমরা ধন্য।

বিজয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম মাহবুব হোসেন বলেন, করোনায় জেলা ছাত্রলীগ যেভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে তা ইতিহাস হয়ে থাকবে। আর এসব শোভনের কারণেই হয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন শোভন বলেন, মানুষের জন্যই মানুষ। আর মানুষের জন্যই রাজনীতি করি।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর নির্দেশ এবং অনুপ্রেরণায় অসহায় মানুষের জন্য কাজ করি। শুধু করোনা নয়, সব সময় অসহায়দের জন্য কিছু করার চেষ্টা করি। এছাড়া জেলা ছাত্রলীগ ঐক্যবদ্ধ আছে বলেই তাদের জন্য কিছু করতে পেরেছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর