Alexa খালি হাতে ফিরলেন শতাধিক জটিল রোগী

খালি হাতে ফিরলেন শতাধিক জটিল রোগী

নোয়াখালী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৬:০৭ ১৮ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৬:২৭ ১৮ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নোয়াখালীতে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতায় আর্থিক সহায়তার চেক পাননি শতাধিক জটিল রোগীরা। এর মধ্যে ছিলেন ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইজড ও জন্মগত হৃদ রোগী।

রোববার সকাল থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত অবস্থান শেষে জেলা সমাজসেবা কার্যালয় থেকে খালি হাতে ফেরেন এসব রোগীরা।

৩১ অক্টোবর ডিসি কার্যালয়ের হলরুমে ৩৪৬ জটিল রোগীকে ৫০ হাজার টাকার আর্থিক চেক বিতরণের ঘোষণা দেয়া হয়। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশ হয়। কিন্তু ঘোষণা অনুযায়ী জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালকের কাছ থেকে শতাধিক জটিল রোগী চেক পাননি।

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে অবস্থানরত ভোক্তভোগী রোগী রফিক উল্যা, মেহের উল্যা, লাইলী বেগম, নুরুল আমিন, মমতাজ বেগম, ফাতেমা বেগম, আবু তাহের, মাসুমা খাতুন, ফারভীন আক্তার, মাহাবুদু ইসলাম, দেলোয়ার হোসেনসহ অর্ধশতাধিক রোগী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, তালিকায় নাম থাকলেও দুই সপ্তাহে কার্যালয়ে ঘুরে এখনো চেক বুঝে পাননি তারা। যতবার চেকের জন্য এসেছেন, অফিস সহকারী এনতাজ উদ্দিন ৩৪৬ জনের বদলে ২৪১ জনের তালিকা দেখান। বাকি চেক সম্পর্কে তিনি জানেন না বলে রোগীদের সঙ্গে অশ্লীল আচরণ করেন। 

রোগীদের অভিযোগ- ফরম জমা নিতে ৩০০ টাকা ও চেক প্রদানে ২০০ করে ঘুষ নিয়েছেন এনতাজ উদ্দিন। আর্থিক অভাবে অনেক রোগীর চিকিৎসা বন্ধ হয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের অফিস সহকারী এনতাজ উদ্দিন কোনো উত্তর না দিয়ে প্রতিবেদককে এড়িয়ে যান।

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আইয়ুব খান জানান, অর্থ বছরে মন্ত্রণালয়ে ৫১০টি আবেদন পাঠিয়েছি। এর মধ্যে ৩৪৬টি চেক আমাদের কাছে পৌঁছেছে। ওই চেকের মধ্যে ২৪৩টি চেক অনুমোদন করা হয়েছে। ক্রমান্বয়ে বাকি চেকগুলোও অনুমোদন করা হবে। 

চেক বিতরণে বিলম্বের বিষয়ে তিনি জানান, অফিসের কিছুটা চাপ থাকায় চেকগুলো বিতরণ করতে একটু সময় লাগছে। শিগগিরই বাকি উপকারভোগীদের হাতে চেক তুলে দেয়া হবে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ