ক্ষতির মুখে ৪০ কোটি টাকার মৌসুমি ফসল 

ক্ষতির মুখে ৪০ কোটি টাকার মৌসুমি ফসল 

মহাসিন আলী, মেহেরপুর ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:৫০ ১৬ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১৫:৫৬ ১৬ জুলাই ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মেহেরপুর সদর উপজেলায় দাদপুর স্লুইস গেট বন্ধ থাকায় মুজিবনগর উপজেলার গোপালপুর গ্রামের মাঠের উঠতি ফসল পানিতে ডুবে গেছে। এ পানি নিষ্কাশনে কোনো ব্যবস্থা না নিলে ক্ষতির মুখে পড়বেন কৃষকরা। নষ্ট হবে হাজার হাজার বিঘা জমির উঠতি ফসল। 

এলাকাবাসী জানান- গত কয়েক দিনের ভারী বর্ষণে গাংনী উপজেলার সাহারবাটি, গাড়াডোব, কসবা-ভাটপাড়া, সদর উপজেলার দরবেশপুর, সিংহাটি, চুয়াডাঙ্গা জেলার  গোকুলখালীসহ এলাকার পানি কাজলা নদী দিয়ে ভৈরব নদ দাদপুর বিল ও বিল সংলগ্ন বিভিন্ন মাঠে জমেছে। স্লুইস গেটটি খুলে না দেয়ায় পানির চাপ দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

গোপালপুর গ্রামের কৃষক লিয়াকত আলী জানান- গোপালপুর গ্রামের মাঠে মৌসুমে তিনি ৮ বিঘা জমিতে ধান, ৬ বিঘা জমিতে পাট, এক বিঘা জমিতে সিম ও ১০ কাঠা জমিতে ঝাল চাষ করেছেন। 

তিনি বলেন, আর দুই-চার দিন ফসল পানির নিচে থাকলে তাকে এ মৌসুমে কমপক্ষে ৪ লাখ টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে। 

গোপালপুর মাঠে একই গ্রামের স্বপন মাস্টার আড়াই বিঘা জমিতে ধান, আতিরুল আড়াই বিঘা জমিতে সিম, মিজানুর ২ বিঘা জমিতে ধান, এক বিঘা জমিতে পাট ও এক বিঘা জমিতে সিম, কামরুল এক বিঘা জমিতে ধান ও ৪ বিঘা জমিতে পাট, তাইজুল ২ বিঘা জমিতে ধান, এক বিঘা জমিতে সিম ও এক বিঘা জমিতে ঝাল এবং মতিন খন্দকার ও তাদের অন্যান্য ভাইরা ১০ বিঘা জমিতে ধান, ৩ বিঘা জমিতে পাট, ২ বিঘা জমিতে সিম ও এক বিঘা জমিতে ঝাল চাষ করেছেন। এসব ফসল এখন পানির নিচে। দ্রুত পানি না সরাতে পারলে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়বেন তারা। 

সদর উপজেলার কাঁঠালপোতা গ্রামের আলাই আমিনসহ এলাকার অনেকে বলেন- স্লুইস গেট বন্ধ থাকায় বৃষ্টির পানি ভৈরব নদে নামতে পারছে না। এ কারণে শুধু গোপালপুর মাঠই নয়, পাশাপাশি কাঁঠালপোতা, সোনাপুর, গহরপুর ও বলিয়ারপুর গ্রামের মাঠের মৌসুমি ফসল পানিতে তলিয়ে আছে। পানি না সরলে এসব মাঠের ফসল বাবদ প্রায় ৩০-৪০ কোটি টাকা ক্ষতির মুখে পড়তে হবে।

এ ব্যাপারে মেহেরপুর সদরের ইউএনও মাসুদুল আলম বলেন, গোপালপুর মাঠের ফসল পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি দ্রুত তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম/আরএম