কোন জেলায় গিয়ে কী খাবেন

ফিচার প্রতিবেদকডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:৫৬ ১১ মার্চ ২০১৯   আপডেট: ১৩:১৮ ১১ মার্চ ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিসান সাদিদ নামের এক তরুণ মাত্র ২৫ বছর বয়সে ঘুরেছেন পুরো দেশ। কোন জেলার কোন খাবারটি তার পছন্দ হয়েছে, সে তালিকাটাই করেছেন তিনি। আপনি যদি ভোজনরসিক হয়ে থাকেন, তাহলে খাবারগুলো আপনার ভালো লাগতে পারে। দুই পর্বের শেষ পর্ব আজ-

প্রথম পর্ব পড়ুন: ৬৪ জেলার জনপ্রিয় খাবারের তালিকা

১১১. টাউনহলের চা (কুমিল্লা)
১১২. ছন্দুর হোটেলের দই (কুমিল্লা)
১১৩. ছন্দুর হোটেলের গরুর মাংস (কুমিল্লা)
১১৪. ছন্দুর হোটেলের খাশির মাংস (কুমিল্লা)
১১৫. আলুভর্তা (ছন্দুর হোটেল,কুমিল্লা)
১১৬. গরীবের চানাচুর (টাউনহল,কুমিল্লা)
১১৭. রসমালাই (কুমিল্লা)
১১৮. মাতৃভান্ডারের ছানামুখি (ব্রাক্ষনবাড়িয়া)
১১৯. পূর্নিমার জিলাপি,বনরুটি (গুলিস্থান,ঢাকা)
১২০. বার্গার (বার্গার কুইন,ঢাকা)
১২১. কাচ্চি (ট্রাডিশন বিডি,ঢাকা)
১২২. ভাদু সাহার মালাইকারি (রাজবাড়ি)
১২৩. চমচম (রাজবাড়ি)
১২৪. মাংসের বড়ার চটপটি (গোপালগঞ্জ)
১২৫. পাচুরিয়ার চা (গোপালগঞ্জ)
১২৬. দত্তর সন্দেশ (গোপালগঞ্জ)
১২৭. খানের খিচুড়ি (গোপালগঞ্জ)
১২৮. হাঁসের মাংস (পুলিশ লাইন,গোপালগঞ্জ)
১২৯. ইটেরপুলের চটপটি (মাদারিপুর)
১৩০. সুনামির ফিরনি (ঢাকা)
১৩১. সুনামির কাচ্চি (ঢাকা)
১৩২. বোরহানি (সুনামি,ঢাকা)
১৩৩. পাগলার মিষ্টি (মানিকগঞ্জ)
১৩৪. মলিনার মিষ্টি (মানিকগঞ্জ)
১৩৫. ভর্তা (জাবি)
১৩৬. উটের দুধ (কমলাপুর, ঢাকা)
১৩৭. চুই ঝালের খাসির মাংস (আব্বাস হোটেল,খুলনা)
১৩৮. চা (নিউমার্কেট, খুলনা)
১৩৯. রয়েলের ফালুদা (খুলনা)
১৪০. মান্নানের ফালুদা (খুলনা)
১৪১. মান্নানের চটপটি (খুলনা)
১৪২. ড্রাগন ফল (নোয়াখালী)
১৪৩. পেঁয়াজু (কাটাখালি,মাগুরা)
১৪৫. কোয়েলের কাবাব (লক্ষীপুর)
১৪৬. কুলফি (কুষ্টিয়া)
১৪৭. খাসির পায়ার হালিম (মাগুরা)
১৪৮. সন্দেশ (নড়াইল)
১৪৯. মিনি বার্গার (সিদ্ধেশ্বরী,ঢাকা)
১৫০. শামীমের মুড়ি ভর্তা (টাঙাইল)
১৫১. কড়াই খিঁচুড়ি (সুগন্ধা হোটেল,টাঙাইল)
১৫২. চমচম (মিষ্টিপট্টি,টাংগাইল)
১৫৩. পুটি মাছ ভূনা (সেতারা হোটেল,রংপুর)
১৫৪. বাদাম ভর্তা (রংপুর)
১৫৫. রুস্তমের গরুর মাংস (দিনাজপুর)
১৫৬. ঘুঘুর রোষ্ট (মৌলভীবাজার)
১৫৭. রাইস বোল (সিলেট)
১৫৮. মুনতাজার হোটেলের আলুপুরি, কাটলেট (আন্দরকিল্লা,চিটাগাং)
১৫৯. ক্যান্ডির জিলাপি (চিটাগাং)
১৬০. লাভ লেইনের পান (চিটাগাং)
১৬১. বিসমিল্লাহর লেবু, পুদিনার জুস (চিটাগাং)
১৬২. সাধুর রসগোল্লা (চিটাগাং)
১৬৩. টুলুর বিহারী বট, পুরি (চিটাগাং)
১৬৪. কাকড়া ভূনা (পতেঙ্গা,চিটাগাং)
১৬৫. হাঙরের শুটকি (রাঙামাটি)
১৬৬. মহিষের চামড়া ভূনা (রাঙামাটি)
১৬৭. কুইচ্চা ভূনা (রাঙামাটি)
১৬৮. সিস্টেমের কফি (খাগড়াছড়ি)
১৬৯. হাসের কালাভূনা (সিস্টেম রেস্টুরেন্ট,খাগড়াছড়ি)
১৭০. বাশকুড়ুল (খাগড়াছড়ি)
১৭১. ব্যাম্বু বিরিয়ানি (চিটাগাং)
১৭২. মেজবান (চিটাগাং)
১৭৩. ক্রাশ ক্যাফের চিকেন চাপ (চিটাগাং)
১৭৪. ওরিয়েন্টের চা (চিটাগাং)
১৭৫. নেভালের পিঁয়াজু (চিটাগাং)
১৭৬. বাহার মামার ডিম বার্গার (চিটাগাং)
১৭৭. চিকেন বন (চিটাগাং)
১৭৮. কবি মামার চা (নেত্রকোনা)
১৭৯. গয়ানাথের বালিশ মিষ্টি (নেত্রকোনা)
১৮০. ডালপুরি (জিলা স্কুল,ময়মনসিংহ)
১৮১. টক জিলাপি (ময়মনসিংহ)
১৮২. নীরব হোটেলের কালা ভূনা (ময়মনসিংহ)
১৮৩. আলুর চপ, ডালপুরি (কলেজ ক্যান্টিন, কিশোরগঞ্জ)
১৮৪. টিপু মামার পিয়াজু, রসুন চপ (ময়মনসিংহ)
১৮৫. চিকেন কাটলেট (প্রেসক্লাব,ময়মনসিংহ)
১৮৬. চিকেন কাটলেট (নাঃ গঞ্জ)
১৮৭. বিরিয়ানি (সুগন্ধা হোটেল,নাঃ গঞ্জ)
১৮৮. বুলেট চা (বিপিন পার্ক,ময়মনসিংহ)
১৮৮. রাজু মামার সিঙাড়া (স্বদেশীবাজার,ময়মনসিংহ)
১৮৯. নিরবের তেহারি (ময়মনসিংহ)
১৯০. প্রেসক্লাবের বিরিয়ানি (ময়মনসিংহ)
১৯১. ছানার পায়েস (শেরপুর)
১৯২. ছানার পোলাও (শেরপুর)
১৯৩. চমচম (কুড়িগ্রাম)
১৯৪. কালোজাম (গাইবান্ধা)
১৯৫. চটপটি (জয়পুরহাট)
১৯৬. কচ্ছপের মাংস (ঢাকা)
১৯৭. রাজ্জাকের ফালুদা,বিরিয়ানি (ঢাকা)
১৯৮. বিসমিল্লাহর কাবাব (নাজিরাবাজার,ঢাকা)
১৯৯. নান রুটি, মুগ ডাল (সিনেমা হলের সামনে,ফেনী)
২০০. ঝুলুর পোলাও (ঢাকা)
২০১. আনন্দ বেকারীর খাবার (ঢাকা)
২০২. বাখরখানি (ঢাকা)
২০৩. রাইস বোল (টাইটানিক,সিলেট)
২০৪. গরুর মাংস (মনিহার,যশোর)
২০৫. পানসীর মুরগী ভূনা (সাতক্ষীরা)
২০৬. কালোজাম (বাজার,সাতক্ষীরা)
২০৭. মুস্তাকিমের চাপ (মোহাম্মদপুর,ঢাকা)
২০৮. মিষ্টি পান (মোহাম্মদপুর,ঢাকা)
২০৯. খেজুর রসের জিলাপী (নিঝুম দ্বীপ,নোয়াখালী)
২১০. বিরিয়ানী (রাজ্জাক প্লাজার পাশে,সাভার)
২১১. গরু ভূনা (গাজিপুর,চৌরাস্তা)
২১২. ক্যাফে শুন্যর সব আইটেম (সিলেট)
২১৩. চিংড়িমাছ ভূনা (বরগুনা)
২১৪. ডিম ভূনা (পঞ্চগড়)
২১৫. কালোজাম (ঠাকুরগাঁও)
২১৬. মিষ্টিপান (বিসিক,ঠাকুরগাঁও)
২১৭. কফি (ঝিনাইদহ)
২১৮. মুরগি ভূনা (মেহেরপুর)
২১৯. খিচুড়ি (জীবননগর,চুয়াডাঙ্গা)
২২০. খণ্ডলের মিষ্টি (খণ্ডলহাই বাজার, পরশুরাম, ফেনী)

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে