Alexa কেরালার পর এবার পাঞ্জাব বিধানসভায় সিএএ বিরোধী প্রস্তাব পাস

কেরালার পর এবার পাঞ্জাব বিধানসভায় সিএএ বিরোধী প্রস্তাব পাস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৫৪ ১৮ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

কেরালার পর ভারতের দ্বিতীয় রাজ্য হিসেবে বিতর্ক সৃষ্টিকারী সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) বিরোধী প্রস্তাব পাস করেছে পাঞ্জাবের বিধানসভা।

শুক্রবার বিধানসভার এক বিশেষ অধিবেশনে এই প্রস্তাব পাশ হয়। পাঞ্জাবের মন্ত্রী ব্রহ্ম মহিন্দ্র বিধানসভায় প্রস্তাবটি পেশ করেন। সিএএ’র সঙ্গে এদিন জাতীয় জনসংখ্যা পঞ্জি (এনপিআর) এবং জাতীয় নাগরিক পঞ্জির (এনআরসি) বিরুদ্ধেও প্রস্তাব পাশ হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী অমরেন্দ্র সিংহের নেতৃত্বে।

এর আগে সিপিএম নেতৃত্বাধীন কেরালার এলডিএফ সরকার বিধানসভায় সিএএ প্রত্যাহারের দাবিতে প্রস্তাব পাস করেছিল। এবার পাঞ্জাবের কংগ্রেস সরকারও একই পথে হাঁটলো।

কংগ্রেসশাসিত পাঞ্জাব সরকারের মন্ত্রী ব্রম্ম মহিন্দ্রা বিধানসভায় সিএএ বিরোধী প্রস্তাব পেশ করতে গিয়ে বলেন, নতুন নাগরিকত্ব আইন ঘিরে দেশজুড়ে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। দেশের সর্বত্র বিক্ষোভ চলছে। পাঞ্জাবেও সিএএ বিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে, তবে তা হয়েছে শান্তিপূর্ণভাবে এবং এতে সমাজের সব অংশের মানুষ অংশগ্রহণ করেছে।

পাঞ্জাব বিধানসভায় পেশ করা প্রস্তাবে বলা হয়, সিএএ দেশের সংবিধান এবং এর মূল চেতনার পরিপন্থী। এটি দেশের নির্দিষ্ট ধর্মের মানুষদের পরিচিতি নষ্ট করার প্রয়াস। এই আইনের মাধ্যমে অভিবাসী মানুষকে বিভক্ত করার চিন্তাভাবনা রয়েছে এবং এটি সাম্যের অধিকার বিরোধী।

প্রস্তাবটিতে আরও বলা হয়েছে, জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসি এবং জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধন বা এনপিআর সম্পর্কে লোকদের সন্দেহ ও দ্বিধাদ্বন্দ্ব রয়েছে, এগুলো দূর করে একে পাস করা উচিত। সিএএ’তেও পরিবর্তন করা উচিত বলেও প্রস্তাবে বলা হয়।

মুখ্যমন্ত্রী অমরেন্দ্র সিংহ সম্প্রতি বলেছিলেন, তার সরকার এই বিভাজনমূলক আইন কার্যকর করতে দেবে না। তিনি বলেন, এই আইনটি এনআরসি এবং এনপিআরের পাশাপাশি ভারতীয় সংবিধান লঙ্ঘন করে।

অমরেন্দ্র আরো বলেন, তিনি সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেয়ার বিরোধী নন, কিন্তু তিনি ‘সিএএ’তে মুসলিমসহ কিছু ধর্মীয় সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে যে বৈষম্য করা হয়েছে তার বিরোধী।

বিতর্কিত এই আইন সম্পর্কে তিনি জানান, ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ অবকাঠামো সবসময়ই শক্তিশালী ছিল। কিন্তু কেউ যদি এটিকে বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা করেন তবে কংগ্রেসের পাশাপাশি এদেশের মানুষও এর বিরোধিতা করবে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী