Alexa কাশ্মীরে রাজনৈতিক বন্দীদের মুক্তি দাবি জানালো মার্কিন কংগ্রেস

কাশ্মীরে রাজনৈতিক বন্দীদের মুক্তি দাবি জানালো মার্কিন কংগ্রেস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:২৪ ৮ ডিসেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

কাশ্মীরে রাজনৈতিক বন্দীদের মুক্তি দাবি জানিয়েছেন মার্কিন কংগ্রেসের সদস্যরা। এছাড়া বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা, ইন্টারনেট ও টেলিফোন সেবা চালু করারও আহ্বান জানানো হয়।

 এ জন্য শুক্রবার মার্কিন কংগ্রেসের হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস-এ একটি প্রস্তাবও আনা হয়েছে।

রিপাবলিকান দলের স্টিভ ওয়াটকিন্সের সঙ্গে মিলে ওই ‘বাইপার্টিসান রেজোলিউশন’টি পেশ করেন ডেমোক্র্যাট দলের প্রমীলা জয়পাল।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক প্রমীলার ওই প্রস্তাবে ভারত সরকারের কাছে আবেদন করে বলা হয়েছে, অবিলম্বে জম্মু ও কাশ্মীরে আটক সমস্ত রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দেওয়া হোক। সেই সঙ্গে ইন্টারনেট-সহ যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করতে হবে। কাশ্মীরের ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষা করার কথাও বলা হয়েছে ওই প্রস্তাবে।

এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নরেন্দ্র মোদি সরকার। এর পর থেকেই উপত্যকায় অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করে সেখানে নিষেধাজ্ঞার কড়াকড়ি শুরু করে।

কারফিউ জারি করা, তিন জন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী-সহ বহু রাজনৈতিক নেতাদের আটক করে রাখা থেকে শুরু করে সমস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়া হয়। বন্ধ রাখা হয় উপত্যকার স্কুল-কলেজ-দোকানপাট-অফিস। এর পর পোস্টপেইড মোবাইল ও ল্যান্ডলাইন চালু করা হলেও এখনো বন্ধ প্রায় ২০ লক্ষ প্রিপেইড মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবা।

ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান— মার্কিন কংগ্রেসের দুই বিরোধী দলের সদস্যরাই গত কয়েক মাসে কাশ্মীরের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

অক্টোবরে, ভারত বলেছিল যে দুঃখজনক যে আমেরিকার কয়েকজন সংসদ সদস্য জম্মু ও কাশ্মীরে জনগণের জীবন রক্ষার ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন করার জন্য একটি কংগ্রেসনাল শুনানি ব্যবহার করেছিলেন। "এটা দুঃখজনক যে মার্কিন কংগ্রেসের কয়েকজন সদস্য দক্ষিণ কাশ্মীরের মানবাধিকার বিষয়ক কংগ্রেসনাল শুনানির মাধ্যমে কাশ্মীরে জীবন, শান্তি ও সুরক্ষা রক্ষার জন্য সম্প্রতি গৃহীত পদক্ষেপগুলো নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন।"

উল্লেখ্য, প্রতিনিধি পরিষদের ওই প্রস্তাবে জম্মু কাশ্মীরে ইন্টারনেট পুনঃপ্রতিষ্ঠার অনুরোধ জানানো হয়েছে। এই প্রস্তাবটি পরে প্রতিনিধি পরিষদে ভোটে দেয়ার কথা রয়েছে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব জম্মু ও কাশ্মীরে যোগাযোগের সব বিধি-নিষেধ প্রত্যাহার ও ইন্টারনেট সুবিধা চালু করার আহ্বান জানানো হয়েছে। এমনকি খেয়ালখুশি মতো আটক করা ব্যক্তিদের দ্রুত মুক্তি দেয়ার আহ্বানও জানানো হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ