কানের দুল বিক্রি করতে না দেয়ায় স্ত্রীর গায়ে আগুন

কানের দুল বিক্রি করতে না দেয়ায় স্ত্রীর গায়ে আগুন

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২১:০৩ ১২ জুন ২০১৯  

আসমিনা বেগম। ফাইল ছবি

আসমিনা বেগম। ফাইল ছবি

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় কানের দুল বিক্রি করতে না দেয়ায় স্ত্রীর গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার মামলা হয়েছে।

৪ জুন উপজেলার মুছেগুল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এতে ভুক্তভোগী আসমিনা বেগমের শরীরের ৬০ ভাগ পুড়ে গেছে। ৯ দিন ধরে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন তিনি।

আসমিনা বেগম বড়লেখা সদর ইউপির জফরপুর গ্রামের ছমির উদ্দিনের মেয়ে। অভিযুক্ত শাহেদ আহমেদ মুছেগুল গ্রামের আনু মিয়ার ছেলে।

বড়লেখা থানার ওসি ইয়াসিনুল হক বলেন, তিন বছর আগে শাহেদ আহমদের সঙ্গে আসমিনা বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে আসছেন তিনি। কয়েকদিন আগে স্ত্রীর কানের দুল বিক্রি করার চেষ্টা করেন সাহেদ। বিষয়টি বুঝতে পেরে আসমিনা তার কানের দুল বাবার বাড়িতে রেখে আসেন। ঘটনার দিন আসমিনা কানের দুল দিতে না চাওয়ায় তার কাপড়-চোপড়ে আগুন ধরিয়ে দেন শাহেদ। এ সময় আসমিনা বাধা দিলে তাকেও আগুনের মধ্যে চেপে ধরেন শাহেদ। পরে স্ত্রীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেখে পালিয়ে যান তিনি। ওইদিনই আসমিনাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় তার বাবা-মা। সেখান থেকে পাঁচ দিন পর তাকে ছেড়ে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এখন মুমূর্ষ অবস্থায় বাবার বাড়ি আছেন আসমিনা বেগম।

ওসি মো. ইয়াছিনুল হক আরো বলেন, আসমিনা বেগমের বাবা-মায়ের পক্ষে উন্নত চিকিৎসা করানো সম্ভব না। তাই উপজেলা চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় আমি তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছি। দগ্ধ আসমিনার বাবা শাহেদ আহমেদ ও তার মায়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর