কর্মীদেরও ভুলে গেছে ভৈরব বিএনপি

কর্মীদেরও ভুলে গেছে ভৈরব বিএনপি

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:২৫ ২ জুলাই ২০২০  

সংগৃহীত

সংগৃহীত

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায় করুণ দশা বিএনপির। এছাড়াও উপজেলা বিএনপির মধ্যে প্রকাশ্যে বিভাজন না থাকলেও দলের ভেতরে অঙ্গ সংগঠনের কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্ব ও কোন্দল রয়েছে। ফলে অনেকটা নাজুক অবস্থায় রয়েছে দলটি। সুসম্পর্ক না থাকায় উপজেলার তৃণমূলের কর্মীদের দলটির প্রতি অনাস্থাও তৈরি হয়েছে।  

ফেরিঘাট বাজারের মাছ বিক্রেতা ফরিদ উদ্দিন বলেন, এখন করোনার কারণে বাজারে ঠিক মতো আসা হয় না। তাই ঘরে বসে দিন কাটছে। একেবারেই বেকার জীবন। স্কুল শিক্ষার্থী দুই ছেলে-মেয়ে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা কয়েকবার ত্রাণসামগ্রী দিয়েছে। তবে বিএনপি বা অন্যান্য দলগুলো মহামারির এই দুর্যোগে পাশে দাঁড়ায়নি। আওয়ামী লীগের পাশাপাশি অন্যান্য দলগুলো এগিয়ে আসলে এই পরিস্থিতিতে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে কষ্ট কমে যেতো।

উপজেলা বিএনপির তৃণমূলের একাধিক কর্মী জানান, তৃণমূলের কর্মীদের ভুলে গেছে উপজেলা বিএনপি। এমনকি মহামারি এই করোনা পরিস্থিতিও কোনো খোঁজখবর রাখছেন না সিনিয়র নেতারা। দু:সময়ে কর্মীরা দলের পাশে দাঁড়ালেও এখন কর্মীদের দু:সময়ে বিএনপি নেই। দলকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করতে হলে তৃণমূলের কর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে। তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে।

জামালপুর গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক শামিম মিয়া বলেন, ভৈরবে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি সামাজিক কর্মকাণ্ডেও পিছিয়ে পড়েছে বিএনপি। ফলে নেতাদের সঙ্গে তৃণমূল কর্মীদের বাড়ছে দূরত্ব। বিশেষ করে বছরের পর বছর ধরে ক্ষমতায় আসতে না পারায় এসব কর্মীদের খবরও রাখছেন না সিনিয়র নেতারা। ফলে দিন যতই যাচ্ছে, ততই সাংগঠনিকভাবে ভৈরবে পিছিয়ে পড়ছে বিএনপি।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম মুঠোফোনে জানান, দলের ভেতরে বা প্রকাশ্যে কোনো দ্বন্দ্ব নেই। উপজেলা বিএনপি ঐক্যবদ্ধ আছে। তবে, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে চলমান পরিস্থিতিতে দলীয় কোনো সাংগঠনিক কার্যক্রম নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/এস