করোনাভাইরাসের প্রভাবে অস্থির বিশ্ব শেয়ারবাজার

করোনাভাইরাসের প্রভাবে অস্থির বিশ্ব শেয়ারবাজার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:০৩ ২৮ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

চীন থেকে বিশ্বের বেশকিছু দেশে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রভাবে অস্থির হয়ে উঠছে বিশ্ব শেয়ার বাজার। এশিয়াসহ বিশ্বের প্রধান সব শেয়ারবাজারগুলোতে এরইমধ্যে দরপতন শুরু হয়েছে। নিম্নমুখী হয়ে পড়েছে শেয়ারের সূচকও।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের শেয়ারবাজারের প্রধান তিনটি সূচকেই দরপতন হয়েছে দেড় শতাংশের বেশি। অপরদিকে, লন্ডনের এফটিএসই সূচকের পতন গিয়ে ঠেকেছে প্রায় ২ দশমিক ৩ শতাংশ।

চীনের সঙ্গে যেসব প্রতিষ্ঠানের বাণিজ্য বেশি মূলত তারাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

চীনে করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত দেশটিতে ১০৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ৩০০ জন। এর ফলে দেশটিতে সরকারি হিসাব মতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা চার হাজার ৫১৫ জন। অন্যান্য দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে অন্তত ৪৪টি।

চীনা নববর্ষের সময় লাখ লাখ মানুষ ভ্রমণে বের হন, স্বাভাবিকভাবেই পর্যটন ও কেনাবেচার সূচকে বড় উন্নতি ঘটে। এ বছর বাণিজ্যিকভাবে এমন গুরুত্বপূর্ণ সময়েই করোনাভাইরাস আঘাত হেনেছে।

সোমবার ছুটির কারণে এশিয়ার অনেক শেয়ারবাজার বন্ধ ছিল। তবে বিশ্বের অন্য দেশগুলোতে ঠিকই ভাইরাস আতঙ্কের প্রভাব দেখা গেছে, বিশেষ করে ফ্যাশন কোম্পানিগুলোর শেয়ারে।

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে বিভিন্ন ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করেছে চীন। তারা বেশ কয়েকটি শহরে ভ্রমণ নিষিদ্ধ করেছে, যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে, বাসিন্দারা অনেকটা গৃহবন্দী অবস্থায় রয়েছেন। দেশটির বেশ কিছু কোম্পানি কর্মীদের ছুটি বাড়িয়েছে, কেউ কেউ বাড়িতে বসে কাজ করছেন, আবার কেউ ভাইরাসআক্রান্ত এলাকা ভ্রমণ করলে তাকে কর্মস্থলে যেতে নিষেধ করা হচ্ছে।

বিশ্লেষকরা এ পরিস্থিতিকে ২০০২ সালে সার্স (সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিন্ড্রোম) ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের সঙ্গে তুলনা করেছেন। চীনে আট হাজার মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়, প্রাণ যায় অন্তত ৭৭৪ জনের। সেই সময় সার্সের উৎপত্তিস্থল চীনের বার্ষিক প্রবৃদ্ধি এক লাফে কমে যায় প্রায় দুই শতাংশ।

করোনাভাইরাস এখনও ততটা প্রাণঘাতী না হয়ে উঠলেও বিশ্ব অর্থনীতিতে এর যথেষ্ট নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। মুডি’স অ্যানালিটিক্সের বিশ্লেষক রায়ান সুইট বলেন, ভাইরাসের কারণে অর্থনৈতিক বাজার অবস্থা, আত্মবিশ্বাস, ভোক্তাব্যয় ও রফতানির মাধ্যমে এশিয়ার অর্থনীতিতে ব্যাপক ক্ষতি হবে; তা ছড়িয়ে পড়বে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশেও।

সোমবার ইউরোপের শেয়ারবাজারে বড় ধরনের অবনমন ঘটেছে। এদিন জার্মানির ডিএএক্স ও ফ্রান্সের সিএসি ৪০ উভয় সূচকই পড়ে গেছে ২ দশমিক ৫ শতাংশের বেশি। চীনে বহুল জনপ্রিয় এলভিএমএইচ, কেরিং, ল’রিয়্যাল ও হার্মেসের মতো বিলাসবহুল ব্র্যান্ডগুলোর শেয়ারের দাম গতমাসে রেকর্ড পরিমাণ বাড়লেও ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের ধাক্কা এসেছে তাদের ওপরও।

পোশাক প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান বারবেরির ১৬ শতাংশ পণ্য বিক্রি হয় চীনে। সোমবার লন্ডনে তাদের শেয়ারের দাম কমে গেছে ৪ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

চীনের ম্যাকাও শহরে ক্যাসিনো ব্যবসা আছে উইন রিসোর্টসের। দরপতনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে রয়েছে এ প্রতিষ্ঠানটি। যুক্তরাষ্ট্রে তাদের শেয়ারের দরপতন হয়েছে প্রায় আট শতাংশ। একই ব্যবসা করা লাস ভেগাস স্যান্ডসের দরপতন হয়েছে প্রায় ৬ দশমিক ৬ শতাংশ।

তবে এত আশঙ্কার মধ্যেও আশার কথা জানিয়েছেন অক্সফোর্ড ইকোনমিস্টের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ টমি উ। তার মতে, বছরের প্রথম তিনমাস এর প্রভাব পরলেও আস্তে আস্তে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যেতে পারে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী