Alexa এবার কাঁঠলের ট্রাকে ফেনসিডিল, গ্রেফতার ৮

এবার কাঁঠলের ট্রাকে ফেনসিডিল, গ্রেফতার ৮

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:২৪ ১৭ জুলাই ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মৌসুমী ফল,গম, ভুট্টার পর এবার কাঁঠালের আড়ালে ট্রাকে ফেনসিডিল পাচারের সময় ৮ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৭১৮ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। সেই সঙ্গে মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত ১টি ট্রাক ও ১টি প্রাইভেটকার জব্দ করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- রাজু আহম্মেদ (৩২), মুন্না (২০),  সাগর (১৯), ইউসুফ (৩০), নূর ইসলাম (৩৪), রফিকুল ইসলাম (৫০), মফিজুল ইসলাম (৩১) ও মোস্তাফিজুর (২০)। মঙ্গলবার রাত ৩টার দিকে উত্তরার হাউজবিল্ডিং এলাকার ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. সারওয়ার-বিন-কাশেম বুধবার বিকেলে এ তথ্য জানান। 

তিনি জানান, আগেই গোয়েন্দা তথ্যে জানা ছিল, দিনাজপুরের সীমান্ত এলাকা বিরামপুর থেকে কাঁঠাল ভর্তি ট্রাকে করে মাদকের একটি বড় চালান ঢাকার আসছে। এ তথ্যে ট্রাকটির গতিবিধি অনুসরণ করা হয়। পরে রাত ৩টার দিকে উত্তরা হাউজিং এলাকায় ট্রাকটি থামিয়ে তল্লাশি করা হয়। এ সময় কাঁঠালের আড়ালে লুকিয়ে রাখা ৭১৮ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতার করা হয় ৮ মাদক ব্যবসায়ীকে। মাদক বহনে ব্যবহৃত ট্রাকটি ও ১টি প্রাইভেটকার আটক করা হয়েছে।

জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানায়, তারা সবাই পরিবহন চালক ও সংঘবদ্ধ মাদক চক্রের সদস্য। তাদের মধ্যে রাজু আহম্মেদ নৈশ কোচ চালক। মাদক ব্যবসায় জড়িত হওয়ার পর সে ট্রাক চালানো শুরু করে। ট্রাকে বিভিন্ন মৌসুমী ফলের আড়ালে মাদক নিয়ে সে ঢাকায় আসে। চালান প্রতি সে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা পায়। সে ৭ টি মাদকের চালান ঢাকায় এনেছে। মুন্না ও সাগর তার সহকারী। তারা প্রতি চালানে ৫-৭ হাজার টাকা পায়।

অপরদিকে, গ্রেফতার ইউসুফ জানায়, সে উবার চালক। এর আগে ৭ বছর সে ভাড়ায় প্রাইভেটকার চালায়। প্রাইভেটকারে মাদকের চালান নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় পৌছে দিত। সে গণি নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর সঙ্গে কাজ করতো। গণি জেলে যাওয়ার পর সে নিজেই দায়িত্ব নেয়। প্রতি চালানে সে ৮-১০ হাজার টাকা পায়। 

এছাড়া গ্রেফতার অন্যরাও সংঘবদ্ধ মাদক চক্রের সদস্য। তারা ট্রাকে মাদক তুলে দিয়ে আগেই গন্তব্যে এসে চালান গ্রহণ করার জন্য অপেক্ষায় থাকে। চালান গ্রহণ করে বিভিন্ন খুচরা বিক্রেতার কাছে প্রাইভেটকার বা সিএনজিতে এসব মাদক পৌঁছে দেয় তারা। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এসবি/এমআরকে

Best Electronics
Best Electronics