একটু সহযোগিতায় ফুটতে পারে আকরামের মুখে হাসি

একটু সহযোগিতায় ফুটতে পারে আকরামের মুখে হাসি

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:৪৯ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৭:৫৫ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সারা বাড়ি মাতিয়ে রাখা ছোট্ট শিশু আকরাম হোসেন। প্রতিদিন সকালে সহপাঠীদের সঙ্গে ছুটে যেতো বিদ্যালয় আঙিনায়।

গত বছরের শুরুতে মাত্র কয়েক সপ্তাহ বিচরণ করেছে শিক্ষাঙ্গণে। আজ তার সেই চঞ্চলতা নেই। নেই মুখে হাসি। সাত বছরের এই শিশুর শরীরে হয়েছে অস্ত্রোপচার। 

ইনফেকশন সারাতে দেয়া হয়েছে ৮টি কেমো থেরাপি। অপারেশন পরবর্তী ব্যথায় কাতর আকরামের চোখে মুখে অজানা আশঙ্কার ছাপ। টানা নয় মাস হাসপাতালে ছেলের চিকিৎসা করাতে গিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী হোসেন আলীও সর্বস্ব শেষ করে চার লাখ টাকা ঋণের বোঝা বয়ে চলেছেন। 

চিকিৎসকদের পরামর্শে আকরামকে দ্বিতীয় দফায় অপারেশন করতে হবে। উন্নত চিকিৎসার জন্য ভর্তি করতে হবে মহাখালী ক্যান্সার হাসপাতালে। 

অসহায় বাবা হোসেন আলী কিস্তির টাকা, মা আছমা বেগম বহু কষ্টে ছেলের পথ্য আর দুবেলা দুমুঠো আহার যোগাতে ব্যস্ত। 

চোখে মুখে অন্ধকার দেখা হতভাগা বাবা-মা এখন নীরবে নিভৃতে চোখের পানি ফেলা ছাড়া ছেলের জন্য কিছুই করতে পারছেন না। 

এ অবস্থায় দেশের হৃদয়বান মানুষের সহযোগিতায় এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন আকরামের পরিবার। একটু সহযোগিতায় ফুটতে পারে আকরামের মুখে হাসি। ফিরে আসতে পারে টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার ইদিলপুর গ্রামের হোসেন আলী-আছমার ঘরে শান্তি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে