Alexa এই জঙ্গলে কেউ গেলেই কেন তার মৃত্যু হয়?

এই জঙ্গলে কেউ গেলেই কেন তার মৃত্যু হয়?

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৩৪ ১৫ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৫:৪১ ১৫ আগস্ট ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

প্রতিবছর এই জঙ্গল থেকে প্রচুর লাশ এবং পচা গলা দেহাবশেষ উদ্ধার হয়। জাপানের টোকিও শহর থেকে ১০০ মাইল পশ্চিমে অবস্থিত আওকিগাহারা অরন্য। এটি জাপানের বিখ্যাত পাহাড় মাউন্ট ফুজির নিচে উপত্যকা অঞ্চলের মধ্যে বিস্তৃত। এই জায়গাটি স্থানীয় ভাষাতে সুসাইড ফরেস্ট নামে খ্যাত।

এটি পৃথিবীর এক অন্যতম আত্মহত্যার জায়গা হিসেবে কুখ্যাত। স্থানীয় লোকেরা এই জায়গাটি জুকাই নামে ডাকে। জুকাই শব্দের অর্থ হল গাছের সাগর। এটি মাউন্ট আবুর দু’টি বিখ্যাত গুহা বরফ গুহা এবং বায়ু গুহার নিকটে অবস্থিত। এই বনটির ভিতরে গাছের উচ্চতা এবং ঘনত্ব অনেক বেশি। 

আওকিগাহারা জাপানের সবচেয়ে ভুতূরে জায়গা। ১৯৯০ সাল পর্যন্ত এখানে বছরে ৩০ জন করে আত্মহত্যা করতেন। কিন্তু ২০০৪ সালে তা বেড়ে দাড়ায় ১০৮ জন। আবার ২০১০ সালে ২৪৭ জন আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলো যার মধ্যে ৫৭ জন মারা যায়।

বাকিদের প্রশাসনের তরফ থেকে বাঁচিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছিলো। এই জঙ্গলটি নিয়ে হলিউড সিনামে আছে। তবে জঙ্গলের ভিতরে শ্যুটিং করার অনুমতি তাদের দেয়া হয়নি। কারণ প্রচলিত বিশ্বাস যে এই জঙ্গলে বাস আশরিরী আত্মা। তাদের ডাকেই মানুষ ছুটে যায় এই জঙ্গলে আত্মহত্যার জন্য।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস