Alexa উপসাগর থেকে দূরে থাকতে বিদেশি বাহিনীকে ইরানের হুঁশিয়ারি

উপসাগর থেকে দূরে থাকতে বিদেশি বাহিনীকে ইরানের হুঁশিয়ারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২১:০৯ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

সৌদি তেল স্থাপনায় হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে আরব আমিরাত ও সৌদি আরবে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা মোতায়েনের ঘোষণার পর উপসাগরীয় অঞ্চল ছাড়তে মার্কিন বাহিনীকে সতর্ক করে দিয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। বিদেশি সেনারা উপসাগরীয় অঞ্চলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা হুমকির মুখে ফেলেছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

১৯৮০-১৯৮৮ সাল পর্যন্ত চলা ইরান-ইরাক যুদ্ধের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে দেওয়া এক ভাষণে তিনি পশ্চিমা দেশগুলোকে উপসাগর থেকে দূরে থাকতে বলেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

রুহানি বলেন, বিদেশি সেনারা সবসময় এই অঞ্চলের জন্য ‘যন্ত্রণা ও দুর্ভোগ’ বয়ে এনেছে। তাদের অস্ত্রের প্রতিযোগিতায় ব্যবহার হওয়া উচিত নয়।

সম্প্রতি সৌদির আরবের দুটি তেল স্থাপনায় ড্রোন হামলায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সৌদি আরব এবং যুক্তরাষ্ট্র এই হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করেছে। তবে তেহরান সৌদিতে হামলার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে।

নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের আগামী অধিবেশনে ইরান উপসাগরীয় অঞ্চলে শান্তি স্থাপনের জন্য নতুন একটি প্রস্তাব তুলে ধরবে বলে জানিয়েছেন রুহানি। 

ইরানের সঙ্গে ছয় বিশ্বশক্তির স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র বেরিয়ে যাওয়ার পর চলতি বছরে তেহরান-ওয়াশিংটন চরম উত্তেজনা শুরু হয়। ইরানের বিরুদ্ধে দফায় দফায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র।

ওদিকে সৌদি আরবে যুক্তরাষ্ট্রের আরো সেনা মোতায়েনের খবর প্রকাশের পর ইরানের বিখ্যাত রেভল্যুশনারি গার্ড বাহিনীর প্রধান মেজর জেনারেল হোসেইন সালামি তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেছেন, যেই হামলা চালাবে পিছু নিয়ে তাদের ধ্বংস করে দেওয়া হবে।

তবে প্রেসিডেন্ট রুহানি পাল্টা হামলার হুমকি দিয়ে নয় বরং শান্তির আমন্ত্রণ জানিয়ে উত্তেজনা প্রশমন করতে চাইছেন। 

টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে রুহানি বলেন, “বিদেশি শক্তিগুলো আমাদের এ অঞ্চল এবং এর জনগণের জন্য নিরাপত্তাহীনতা ও সমস্যার কারণ হতে পারে। অতীতে বিদেশি সেনা মোতায়েনের ঘটনা উপসাগরে ‘বিপর্যয়’ ডেকে এনেছিল। তাই আমি তাদেরকে দূরে থাকতে বলেছি।”

“তারা যদি আন্তরিক হয়, তাহলে তাদের উচিত হবে না আমাদের অঞ্চলকে অস্ত্র প্রতিযোগিতার ক্ষেত্র বানানো। আমাদের দেশগুলো ও এ অঞ্চল থেকে আপনারা (বিদেশি শক্তি) যত দূরে থাকবেন, এখানে তত বেশি নিরাপত্তা বজায় থাকবে,” বলেছেন তিনি।

তেহরান প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে মৈত্রী ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধন জোরদার করতে চায় বলেও ভাষণে উল্লেখ করেছেন রুহানি।

এর আগে ইয়েমেনের ইরান ঘনিষ্ঠ হুতিরাও সৌদি আরব এবং এর মিত্রদের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় আগ্রহ প্রকাশ করেছিল। বলেছিল, রিয়াদ ও তার সহযোগীরা যদি ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা না চালায়, তাহলে তারাও আর এ ধরনের হামলা চালাবে না।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী