উচ্ছেদ আতঙ্কে ১২৭ ভূমিহীন পরিবার

উচ্ছেদ আতঙ্কে ১২৭ ভূমিহীন পরিবার

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:১৫ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৬:২৭ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: ডেইলি ‍বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি ‍বাংলাদেশ

নওগাঁর মান্দায় ১২৭ ভূমিহীন পরিবার উচ্ছেদ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। বর্তমানে এ ভূমিহীন মানুষগুলো নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এরইমধ্যে গত ৫ জানুয়ারি নিজেদের বসবাসরত বাড়িঘরগুলো রক্ষার্থে ভূমিহীন পরিবারের ১২৭ জন স্বাক্ষরিত একটি স্বারকলিপি ডিসি বরাবর দেয়া হয়েছে। 

মান্দার গণেশপুর ইউপির কাঞ্চন সুইচগেট হইতে খুদুর মোড় পর্যন্ত হিন্দু-মুসলমান ও আদিবাসীদের বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধী এবং অসহায় ভূমিহীন ১২৭টি পরিবারের প্রায় সহস্রাধিক লোকের বসবাস। তারা প্রায় ৩০ থেকে ৪০ বছর ধরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের খাস জমিতে অস্থায়ীভাবে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে সপরিবারে বাস করছেন। তবে গত ২৬ জানুয়ারি নওগাঁ পওর উপ-বিভাগ-৩,পাওবো, (নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ড) এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সাখাওয়াত হোসেন স্বাক্ষরিত একটি নোটিশ দেয়া হয়। এতে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধিগ্রহণ জমিতে খনন করা খালের পাড়ে অবৈধভাবে নির্মিত স্থাপনা অপসারণের কথা বলা হয়।

বর্তমানে এ পরিবারগুলোর মাথা গোঁজার কোনো ঠাঁই নাই। এই মুহূর্তে যদি উচ্ছেদ করা হয়, তবে তাদের খোলা আকাশের নিচে দিন কাটাতে হবে। তাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা না করে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করলে ভূমিহীন পরিবারের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়াও অনিশ্চিত হয়ে যাবে বলে দাবি ভুক্তভোগীদের। সরেজমিন গিয়ে ভূমিহীন অসহায় পরিবারের লোকজনের আর্তনাদ লক্ষ্য করা গেছে। তারা উচ্ছেদ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। 

ওই এলাকার আবেজান, আইমন, জাহেদা, রুপালী, অঞ্জলী, তছির উদ্দিন, ছাহের আলী, তারামনিসহ সবার দাবি, তাদের গুচ্ছগ্রামের আওতায় এনে বা স্থায়ী বসবাসের ব্যবস্থা করে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হোক। তাহলে তাদের কোনো আপত্তি থাকবে না। কেননা তারা দীর্ঘ ৩০ থেকে ৪০ বছর যাবৎ ওই এলাকায় বসবাস করছেন। তাদের কোনো নিজস্ব জায়গা-জমি নেই বলেই তারা এভাবে রাস্তার পাশে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সরকারি সম্পত্তিতে অস্থায়ীভাবে বাড়ী নির্মাণ করেছেন। 

তাদের দাবি, আমরা গরিব মানুষ। আমাদের কোনো জায়গা-জমি নেই। আমাদের স্থায়ীভাবে বসবাসের ব্যবস্থা না করার আগেই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা না করে আমাদের গুলি করে মারা হোক। আর না হয় আমাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হোক। 

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য আস্তান আলী মোল্লা বলেন, আমার ১নং ওয়ার্ডের গণেশপুর এবং কাঞ্চন গ্রামের কাঞ্চন সুইচ গেট থেকে খুদুর মোড় পর্যন্ত পাঁঠাকাটা খালের ধারে বসবাসকারী লোকজনগুলো খুব অসহায়। পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে তাদের উচ্ছেদের নোটিশ দেয়ায় তারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। তাদের বসবাসের স্থায়ী জায়গা নির্ধারণ করে এর সমাধান করা উচিত। তাছাড়া তারা ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের নিয়ে কোথায় থাকবে। সুতরাং বিষয়টি বিবেচনায় নেয়া উচিত। 

নওগাঁ পওর উপ-বিভাগ-৩,পাওবো, (নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ড) এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সারাদেশের উচ্ছেদ অভিযানের অংশ হিসেবে আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি সেখানেও অভিযান চালানো হবে। ডিসি যদি বিষয়টি বিবেচনায় নেন, তবে উচ্ছেদ অভিযান স্থগিত হতে পারে।


 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর