উইঘুর ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের ওপর পাল্টা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলো চীন

উইঘুর ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের ওপর পাল্টা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলো চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:২৫ ১৩ জুলাই ২০২০   আপডেট: ২০:৫৫ ১৩ জুলাই ২০২০

ছবি: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং

ছবি: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং

চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিমদের নিপীড়নের অভিযোগে চীনা কর্মকর্তাদের ওপর সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলো যুক্তরাষ্ট্র। এবার মার্কিন সেই নিষেধাজ্ঞার জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের ওপর পাল্টা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে চীন। এর মধ্যে রয়েছেন দুই মার্কিন সিনেটরও।

সোমবার চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিং নিষেধাজ্ঞার এই তালিকা প্রকাশ করেছেন। নিষেধাজ্ঞায় পড়া মার্কিন কর্মকর্তারা হচ্ছেন- সিনেটর টেড ক্রুজ, সিনেটর মার্কো রুবিও, প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য ক্রিস স্মিথ এবং আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক অ্যাম্বাসেডর এট লার্জ স্যাম ব্রাউনব্যাক।

এছাড়া, চীন বিষয়ক মার্কিন কংগ্রেসনাল-এক্সেকিউটিভ কমিশনের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এ কমিশন চীনে মানবাধিকার ও আইনের শাসন সমুন্নত রাখার বিষয়টি দেখভাল করে এবং এ সংক্রান্ত বার্ষিক প্রতিবেদন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পসহ কংগ্রেসেকে দিয়ে থাকে।

উইঘুর ইস্যুতে মার্কি নিষেধাজ্ঞা নিয়ে চীনা মুখপাত্র হুয়া চুনিং বলেন, এগুলো চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ের ওপর গুরুতর হস্তক্ষেপ সেইসঙ্গে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের মৌলিক নীতি লংঘন করে। এ ছাড়াও চীন-মার্কিন সম্পর্কে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত করে।

উইঘুর মুসলিমদের ওপর মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য কয়েকদিন আগে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির আঞ্চলিক প্রধান চেন কুয়াঙ্গুকে দায়ী করে মার্কিন প্রশাসন।

এই প্রথম তার মতো কোনো প্রভাবশালী চীনা ব্যক্তিত্বের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল যুক্তরাষ্ট্র। সংখ্যালঘুদের ওপর নিপীড়নে বেইজিং সরকারের নীতির প্রকৌশলী হিসেবে দেখা হয় তাকে।

জিনজিয়াংয়ে তিন সরকারি কর্মকর্তার ওপরেও একই অভিযোগে নিষেধাজ্ঞা এনেছে যুক্তরাষ্ট্র।

উইঘুর মুসলিমদের ডিটেনশন সেন্টারে গণবন্দী, তাদের ওপর ধর্মীয় নিপীড়ন এবং বন্ধ্যাকরণের অভিযোগ আছে চীনের বিরুদ্ধে। যদিও চীন এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

সূত্র: আল-জাজিরা
 

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী