ঈদ নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভায় যেসব সিদ্ধান্ত

ঈদ নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভায় যেসব সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:৪৩ ১২ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১৭:৫৪ ১২ জুলাই ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

*পশুর হাটে সাস্থ্য বিধি মেনে চলতে গাইডলাইন
*চাঁদাবাজি, অজ্ঞান-মলম পার্টি থেকে নিরাপত্তা
*ফেরি, লঞ্চ ও জাহাজে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন নয়

আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যালোচনার বিষয়ে সভা করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

রোববার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। 

যেসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে-

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পশুর হাটে সাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্য একটি গাইডলাইন তৈরি করছে। এ গাইডলাইন বাস্তবায়নের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। ঢাকা শহরের বাইরে পশুর হাট বসানোর জন্য এরইমধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও সিটি কর্পোরেশন ব্যবস্থা  গ্রহণ করবে। এ বছর অনলাইন কেনাকাটার উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

কোরবানির হাটের ইজারাদারদের ব্যবস্থায় হাটের প্রবেশ পথে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা (বেসিনসহ), হ্যান্ড  স্যানিটাইজার রাখতে হবে। ক্রেতাদের মাস্ক পরিধান করে হাটে প্রবেশ করতে হবে। কোনো ক্রেতা মাস্ক  পরে না আসলে ইজারাদারদের নিকট সংরক্ষিত মাস্ক ক্রয় করে হাটে প্রবেশ করতে হবে। হাটের কাছে ব্যাংক বুথ থাকবে। 

রাস্তাঘাটের উপর পশুর হাট দেয়া যাবে না। পশুবাহী ট্রাক কোন হাটে যাবে- ট্রাকের সামনে এরকম একটি ব্যানার লেখা থাকবে। পশুবাহী ট্রাক অন্য কোথাও থামানো যাবে না। পশুবাহী কোনো গাড়ি রাস্তায় থামানো যাবে না। 

নিরাপত্তা বাহিনী প্রতিবারের মতো, জাল নোট, চাঁদাবাজি, অজ্ঞান-মলম পার্টি থেকে নিরাপত্তা দেবে।

নদীপথে ফেরি, লঞ্চ ও জাহাজে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করলে কোস্টগার্ড ও নৌ-পুলিশ ব্যবস্থা নেবে। নদীপথে পশুবাহী ট্রলার যাতে অতিরিক্ত বোঝাই (ওভারলোড) না হয় সে ব্যাপারে কোস্টগার্ড ও নৌ-পুলিশ লক্ষ্য রাখবে।

পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ ও যথাযথভাবে বিপণনের বিষয়ে শিল্প মন্ত্রণালয় ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি অন্যান্য বারের চেয়ে কম সময়ের জন্য বন্ধ রাখা যেতে পারে। শ্রমিকদের বেতন বোনাস যথাসময়ে পরিশোধে বিজিএমইএ এবং কারখানা মালিকগণ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

এবারের ঈদুল আজহার জামাত মসজিদে আদায়ের জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহিদুজ্জামান, আইজিপি ড. বেনজির আহমেদসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএইচআর/এসআই