ইসরাইল-আমিরাত চুক্তিতে বিস্মিত-হতাশ ফিলিস্তিন

ইসরাইল-আমিরাত চুক্তিতে বিস্মিত-হতাশ ফিলিস্তিন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০২:১৯ ১৫ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ০৩:৩৮ ১৫ আগস্ট ২০২০

ফিলিস্তিনি জনগণের বিক্ষোভ। ছবি- সংগৃহীত

ফিলিস্তিনি জনগণের বিক্ষোভ। ছবি- সংগৃহীত

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যস্থতায় ইসরায়েল এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে ‘ঐতিহাসিক শান্তিচুক্তি’ স্থাপনকে সর্বসম্মতভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে ফিলিস্তিন। ডোনাল্ড ট্রাম্পের এমন ঘোষণায় বিস্মিত ও হতাশ ফিলিস্তিনিরা।

এ চুক্তি অনুযায়ী নিরাপত্তা, পর্যটন, প্রযুক্তি ও বাণিজ্যসহ সবক্ষেত্রে পরিপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপনে একমত হয় তেল আবিব-আবুধাবি। চুক্তির বিনিময়ে পশ্চিমতীরে সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা স্থগিত করে ইসরাইল।

বৃহস্পতিবারের এমন ঘোষণায় অবাক হয়েছেন ফিলিস্তিনের সাধারণ মানুষ এবং নীতিনির্ধারকরাও। তারা বলেন, এ চুক্তি ট্রাম্প এবং নেতানিয়াহুকে নির্বাচনে জয়ী হতে সহায়তা করবে।

এ প্রসঙ্গে ফিলিস্তিনের সমাজকল্যাণ মন্ত্রী আহমেদ মাজদালানি বলেন, এই চুক্তির বিষয়ে আগে থেকে আমরা খুব একটা জানতাম না। দ্রুততার সঙ্গে চুক্তিতে পৌঁছানো এবং চুক্তি ঘোষণার সময় বিবেচনায় আমরা সত্যি বিস্মিত। বিশেষ করে ফিলিস্তিনিরা যখন নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে তখন এমন ঘোষণা এলো।

ফিলিস্তিনের বিভিন্ন সংগঠন ও রাজনৈতিক দলের নেতারা মনে করেন, হঠাৎ করেই চুক্তির ঘোষণাটা এসেছে। তবে তারা তাতে ততটা অবাক নন।

প্যালেস্টাইন ন্যাশনাল ইনেশিয়েটিভের নেতা এবং পার্লামেন্ট সদস্য মুস্তাফা আল বারঘৌতি বলেন, আমরা মোটেই বিস্মতি হইনি। কারণ আমিরাতি সামরিক বাহিনী কখনোই সীমান্তে ইসরাইলি বাহিনীকে মোকাবিলায় প্রস্তু ছিল না।

এদিকে প্যালেস্টাইন ন্যাশনাল অথিরিটি, হামাস, ইসলামি জিহাদসহ স্থানীয় সব গোষ্ঠী ইসরাইল-আমিরাত চুক্তির নিন্দা জানিয়ে প্রত্যাখ্যান করেছে তথাকথিত ‘ঐতিহাসিক শান্তি’ চুক্তি। একে পিঠে ছুরিকাঘাত বলে আখ্যা দিয়েছেন ফিলিস্তিনি নেতারা।

এর আগে বৃহস্পতিবার সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ইসরায়েলের ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তিতে পৌঁছানোর তথ্য এক টুইট বার্তায় জানান ট্রাম্প। 

এদিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প, ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এবং আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদের মধ্যে টেলিফোনে আলোচনায় এ চুক্তি নিশ্চিত হয়।

এই তিন নেতা এক যুক্ত বিবৃতিতে আশা প্রকাশ করেন, এই ঐতিহাসিক অগ্রগতি মধ্যপ্রাচ্যে শান্তির অগ্রযাত্রায় সাহায্য করবে। বিবৃতিতে তিন রাষ্ট্রনেতা ইসরায়েল এবং আমিরাতের কূটনৈতিক সম্পর্ক সম্পূর্ণ স্বাভাবিক করতে সম্মত হয়েছেন।

তারা জানান, দুই দেশের মধ্যে স্বাভাবিক সম্পর্কের বিনিময়ে ইসরায়েল পশ্চিম তীরের বিশাল ফিলিস্তিনি এলাকা ইসরায়েলের অংশ করে নেয়ার কাজ আপাতত স্থগিত রাখবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর