Alexa ৫ লাখ ইঁদুর মেরে কৃষকের বন্ধু হলেন ছায়েদ

৫ লাখ ইঁদুর মেরে কৃষকের বন্ধু হলেন ছায়েদ

আখাউড়া(ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:০১ ২২ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৭:৪৩ ২২ অক্টোবর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার বেশিরভাগ খাদ্যশস্য ধ্বংস করছে ইঁদুর। ক্ষতিকারক সেই ইঁদুর নিধন করে কৃষকদের পরম বন্ধু হয়ে উঠছেনে আবু ছায়েদ বেগ নামে এক কৃষক। ইঁদুর নিধনের জন্য তিনি স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে বহু পুরষ্কার পয়েছেনে।

এরই মধ্যে জাতীয় পর্যায়ে চারটি ও আঞ্চলিক পর্যায়ে ১০টি পুরষ্কার রয়েছে। কৃষি বিভাগের মাধ্যমে এখন তিনি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কৃষকদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে চলেছেন। কৃষি বিভাগ বলছে আবু ছায়েদ বেগ  নিজের উদ্ভাবিত যন্ত্রপাতি ও কৌশলের মাধ্যমে ইঁদুর নিধন করে এলাকায় ব্যাপক সাড়া ফলেছেনে। 

বিশেষ করে ২০০০ সালে শুরু হয় ইঁদুর নিধন কার্যক্রম। প্রথম বছরে ১০ হাজার পর্যায়ক্রমে ২০ বছরে ৫ লাখেরও বেশি  ইঁদুর নিধন করেছেন বলে আবু ছায়েদ বেগ জানান।  

মঙ্গলবার সকালে আখাউড়া উপজেলা পরিষদে কৃষি বিভাগের আয়োজনে ইঁদুর নিধন অভিযানের এক আলোচনা সভা ও প্রশিক্ষণ কর্মশালায় যোগ দেন তিনি। 
এর আগে আলাপকালে এসব তথ্য জানান তিনি। এ সময় তিনি নিধন করা চার হাজার ইঁদুরের লেজ ও ১০-১৫টি ইঁদুর নিয়ে আসেন। 

তিনি বলেন, শুধু আখাউড়ায় নয় দেশের বিভিন্ন জেলায় ইঁদুর নিধনে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে যাচ্ছেন। এখন তিনি আশা করছনে তার কাজের স্বীকৃতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পুরষ্কার লাভ করেন।

উপজলোর নবীনগরের জিনেদপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক বেগের ছেলে তিনি। 
ওই গ্রামের  কৃষক আবু ছায়েদ বেগ ২০০০ সালের আগে বিদেশ চলে যান। কিন্তু সেখানে বেশি দিন থাকতে পারেননি। একপর্যায়ে দেশে চলে আসেন। বাড়িতে এসে গম চাষ শুরু করেন।  

তিনি জমিতে দেখছেন যে প্রতিদিন ইঁদুর গম ক্ষেত  নষ্ট করছে। শুধু তার ফসল নয় অন্যের ফসল ও নষ্ট করছে।  

বিশেষে করে ইঁদুর যা খায় তার চেয়ে ১০ গুণ বেশি খাদ্যদ্রব্য নষ্ট করে। এর পর থেকে তিনি  নিজ উদ্যোগে ইঁদুর নিধনের কৌশল উদ্ভাবন করে ইঁদুর মারতে শুরু করে। দুদিনে কমপক্ষে ১০ হাজার ইঁদুর নিধন করে স্থানীয় কৃষি বিভাগের নজরে চলে আসেন। 

পরবর্তীতে বিভিন্ন জেলা উপজেলায় ইঁদুর নিধনে এ কার্যক্রম হাতে নেন। কৃষি বিভাগের পরামর্শে তিনি এরপর থেকে ইঁদুর নিধনে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছেন। 

আবু ছায়েদ বেগ বলেন, আমি ছোট কাল থেকেই কৃষকের কাজ করি। কৃষকের ফসল যাতে ইঁদুর নষ্ট করতে না পারে এ জন্য তিনি ইঁদুর নিধন করে কৃষকদেরকে উৎসাহিত করছেন। এতে করে ফলন বাড়ছে। তিনি বলেন আমি ইঁদুরের ডাক ও ভাষা বুঝি। ডাক ও ভাষার মাধ্যমে তাদেরকে ধরা হয়। 

ইঁদুর নিধন করে  ২০১০, ১১,১২ ও ১৭ সালে জাতীয় পর্যায়ে চারবার  ও স্থানীয় পর্যায়ে ১০বার পুরুষ্কার পান। সর্ব শেষ ২০১৮ সালে বৃহত্তর কুমিল্লা,চাদপুর,ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মধ্যে তিনি প্রথম পুরষ্কার পান। 

পৌর শহরের তারাগন এলাকার  মো. হান্নান মিয়া, জুরুল হক বলেন, শুনেছি এখানে ইঁদুর নিধন সম্পর্কে একজন অভিজ্ঞ লোক আসবেন। তিনি কিভাবে ইঁদুর নিধন করে এবং ইঁদুরের ভাষা বুঝে ইঁদুর ধরে তাই দেখতে ও প্রশিক্ষণ নিতে মূলত আসা। পৌর শহরসহ উপজেলার অন্তঃত ৫০ জন সদস্য এখান থেকে ইঁদুর নিধনের প্রশক্ষিণ নেয়া হয়েছে বলে জানান।

উপজলো কৃষি কর্মকর্তা  শাহানা বেগম বলনে, কৃষি বিভাগের পরামর্শে ছায়েদ বেগের ইঁদুর নিধনের ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছেন। জমির ফসল রক্ষা করতে কিভাবে ইঁদুর নিধন করা হয় মাঠ পর্যায়ে স্থানীয় কৃষকদেরকে নিয়মিত পরমর্শ দিচ্ছেন। তার এই কাজের জন্য তিনি জাতীয় ও স্থানীয়ভাবে পুরষ্কৃত হয়েছেন। আমি তার এই কাজকে সাধুবাদ জানাই। 
 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ