Alexa আসলে কী স্বাভাবিক কাশ্মীর!

আসলে কী স্বাভাবিক কাশ্মীর!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:৫৪ ১২ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৫:০৪ ১২ অক্টোবর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

সেদিন খবরের কাগজের প্রথম পাতাজুড়ে ছিল না খবর। ছিল বিজ্ঞাপন। যা দিয়েছিল জম্মু ও কাশ্মীর সরকার। এতে বাসিন্দাদের প্রতি আবেদন জানানো হয়েছে, সন্ত্রাসবাদী ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের খপ্পরে পড়বেন না। আপনারা স্বাভাবিক কাজকর্ম শুরু করুন।

বলা হচ্ছে, বৃহস্পতিবার সেখানকার খবরের কাগজের কথা। সেদিন থেকেই বিষয়টি ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের ৬৭ দিন পরে, তা হলে কেন প্রশাসনকে বলতে হচ্ছে, সবাই স্বাভাবিক কাজকর্ম শুরু করুন? এর আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও কেন্দ্রীয় নেতা-মন্ত্রীরা একাধিক বার বলেছেন, মানুষ উন্নয়নের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন, কাশ্মীরে সব স্বাভাবিক!  

কাশ্মীরে এখনো বাস চলাচল বন্ধ। ইন্টারনেট নেই। অধিকাংশ দোকানপাট ও বন্ধ। এটিএমে নেই টাকা। অস্ত্র হাতে টহল দিচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। আগস্টের মাঝামাঝি স্কুল খোলার ঘোষণা করেছে প্রশাসন। তবে আজো ক্লাস শুরু হয়নি। কার্যত ঘরবন্দি উপত্যকার নারী-পুরুষ। 

ওই বিজ্ঞাপনে লেখা হয়েছে, ৭০ বছরের বেশি সময় ধরে জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষকে ধোঁকা দেয়া হয়েছে। পরিকল্পনামাফিক অপপ্রচারের সাহায্যে তাদের জীবনকে সন্ত্রাস, ধ্বংস ও দারিদ্রের নিরবচ্ছিন্ন চক্রাবর্তে আবদ্ধ করে ফেলা হয়েছে। আপনারা কি তা থেকে মুক্তি চান না? 

এতে সরকার আরো বলছে, বিচ্ছিন্নতাবাদীরা নিজেদের সন্ততিদের বিদেশে পাঠিয়ে লেখাপড়া করান, আর সাধারণ ছেলে-মেয়েদের হিংসা, পাথর ছোড়া আর হরতালের পথে যেতে উত্তেজিত করেন। ফের সেই পথই নিয়েছেন বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। আপনারা কি এখনো তা সহ্য করবেন? তাদের খপ্পরে পড়ে ধ্বংসকে বেছে নেবেন, নাকি সাধারণ জনজীবনে ফিরবেন।

এরপরেই কাশ্মীরবাসীর প্রতি আবেদন— স্বাভাবিক ব্যবসা-বাণিজ্য, জীবনযাত্রা শুরু করুন। এছাড়া জম্মু-কাশ্মীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক দেখাতে উপত্যকায় ব্লক স্তরে নির্বাচনের আয়োজন করেছে প্রশাসন। সূত্র- আনন্দবাজার

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর