আর মাত্র ৭৫ দিন পর মাঠে ফিরছেন নবাব

আর মাত্র ৭৫ দিন পর মাঠে ফিরছেন নবাব

আসাদুজ্জামান লিটন ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:০৪ ১৪ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১৮:০৫ ১৪ আগস্ট ২০২০

সাকিব আল হাসান

সাকিব আল হাসান

সেদিন ছিল ২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর। সকাল থেকেই গুঞ্জনটা ভেসে বেড়াচ্ছিল, তবে সন্ধ্যা হতেই আশঙ্কা রূপ নেয় কঠিন সত্যে। দেশের ক্রিকেট ইতিহাসেই দিনটিকে কালো অধ্যায় বলে মনে করেন অনেকে। তবে সেই কালো অধ্যায়ের অনাকাঙ্ক্ষিত মেঘ কাটতে বাকি আর মাত্র ৭৫ দিন। অর্থাৎ মাত্র ৭৫ দিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। 

সাকিব আল হাসানের সঙ্গে ৭৫ সংখ্যাটি যেন বিশেষভাবে জড়িত। পৃথিবীর যে প্রান্তেই খেলতে যান না কেনো সাকিবের জার্সিতে লেখা থাকে একটি সংখ্যা, ৭৫। ফলে দেশের অনেক ক্রিকেটভক্তই ৭৫কে সাকিবীয় সংখ্যা বলে থাকেন। 

সাকিব মানেই জার্সি নং ৭৫সাকিবের নিষেধাজ্ঞার পেছনের ঘটনাটি প্রায় সবাই জানেন, তবুও স্মৃতিরোমন্থন করতে বাধ্য হতে হয়। পেছনে ফিরলে দেখা যায় অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে দেশের ক্রিকেটারদের নিয়ে প্রথমবারের মতো ধর্মঘটে নেতৃত্ব দেন সাকিব। সর্বস্তরের ক্রিকেটারদের সেই দাবি-দাওয়া দ্রুতই মেনে নিতে বাধ্য হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। 

এমতাবস্থায় দেশের ক্রিকেটকে নিয়ে যখন নতুন ভোরের অপেক্ষায় সবাই, তখনই বিনা মেঘে বজ্রপাত হয়ে আসে সাকিবের নিষেধাজ্ঞার খবর। কারণটা আপাতদৃষ্টিতে নিতান্তই ছোটখাটো মনে হতে পারে, তবে আইসিসির কাছে ক্রিকেটীয় স্বার্থেই তা বড় ব্যাপার। জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপনের দায়ে দুই বছরের শাস্তি দিলেও তদন্তের সময় সর্বোচ্চ সহযোগিতা করায় এক বছরের শাস্তি কমানো হয়। ফলে কষ্টের মাঝেও কিছুটা স্বস্তি পান ভক্তরা। 

আইসিসির নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার পর সাকিবএরইমাঝে অনেকে বসে পরেন খাতা কলম নিয়ে। এক বছরে এই অলরাউন্ডার বাংলাদেশের কয়টি সিরিজ মিস করবেন, কোন কোন টুর্নামেন্ট খেলতে পারবেন না সব নিয়ে হতে থাকে চুলচেরা বিশ্লেষণ। 

সে সময়ের আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম (এফটিপি) অনুযায়ী দেখা যায় অক্টোবরের ১৫ তারিখে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সঙ্গে সঙ্গে আফসোস শুরু হয় অনেকের মনে, কেউ কেউ শঙ্কায় পড়ে যান। সাকিব ছাড়া বিশ্বকাপে বাংলাদেশ, এমন কিছু কি সহজে কেউ ভাবতে পারে? যদিও দলের প্রত্যেক ক্রিকেটারই গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু সাকিব মানেই তো অন্যরকম এক আশা, বুকের কোণে ভরসা।

একে একে ভারত, পাকিস্তান ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজগুলো মিস করেন সাকিব। ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে নানাভাবে সময়টা কাটিয়েছেন তিনি। কখনো গ্রামের বাড়িতে, কখনো বন্ধুদের সঙ্গে ফুটবল মাঠে আবার কখনো কখনো ফুটবল ম্যাচ দেখতে উড়ে গেছেন প্রিয় দলের মাঠে। মার্চে সন্তানসম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকতে উড়াল দিলেন যুক্তরাষ্ট্রে, এরপরই পৃথিবী থেমে গেল নতুন এক ঝড়ে।

ফুটবল মাঠে সাকিবঅনাকাঙ্ক্ষিত সেই ঝড়ের নাম করোনাভাইরাস। বিশ্বজুড়ে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসের কালো থাবা পড়ে ক্রিকেটাঙ্গনেও। একে একে স্থগিত হতে থাকে বিভিন্ন সিরিজ, একপর্যায়ে পিছিয়ে যায় চলতি বছরের এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও। অর্থাৎ ক্রিকেটের দিক থেকে যে ম্যাচ বা টুর্নামেন্টগুলো মিস করার কথা ছিল তার অনেকগুলোই খেলার সুযোগ পাবেন সাকিব। কিন্তু এভাবে কিছু হয়তো তিনি নিজেও চাননি।

পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও আঘাত হানে করোনা। হঠাৎ কর্মহীন হয়ে পড়েন অনেকেই। খাবারসহ নানারকম অভাবের সম্মুখীন হয়ে পড়েন অসংখ্য মানুষ। দেশ থেকে দূরে থাকলেও ‘বাংলাদেশের জান, বাংলাদেশের প্রাণ’ হিসেবে খ্যাত সাকিব আল হাসান কি দায়বদ্ধতার কথা কি ভুলতে পারেন? সেজন্যই তিনি দেশের কঠিন সময়ে প্রতিষ্ঠা করেন সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন দেশজুড়ে। 

সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশনের লোগোশুধু ফাউন্ডেশন গড়েই ক্ষান্ত হননি সাকিব, নিলামে তোলেন নিজের প্রিয় একটি ব্যাট। এমন এক স্মৃতির ব্যাট যা দিয়ে মাতিয়েছেন বিশ্বকাপ, করেছেন সবমিলিয়ে দেড় হাজারের বেশি রান। মানুষ নাকি প্রিয় স্মৃতির জিনিসগুলো আগলে রাখতে চায়, অথচ প্রিয় জিনিসটিই নিলামে তুলে সেই টাকা দেশের মানুষের জন্য বিলিয়ে দিয়েছেন মিস্টার অলরাউন্ডার। তার পরে আরো অনেকেই ব্যাট বা অন্যান্য ক্রিকেটীয় সামগ্রী নিলামে তুলেছেন, তবে সবার আগে এই কাজ করেছেন সাকিবই। 

এরই মাঝে তার ঘর আলো করে আসে নতুন সন্তান। ক্রিকেট থেকে বিরতি পাওয়ায় বেশ দীর্ঘসময় পরিবারকে ভালোভাবে সময় দিতে পারেন তিনি। নিষেধাজ্ঞা অনাকাঙ্ক্ষিত হলেও এরকম দু-একটা ভালো দিকও হয়তো ছিল। তবে ক্রিকেট থেকে দূরে থাকার কষ্ট হয়তো সবকিছুকেই ছাপিয়ে যাবে। 

দুই সন্তানের সঙ্গে হাস্যোজ্জ্বল সাকিবসময়ের সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে আর গুছিয়ে নিয়েছেন সাকিব, হয়েছেন আরো পরিণত। জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপনের বিষয়ে নিজের ভুল সবসময় স্বীকার করে এসেছেন তিনি। একইসঙ্গে হয়তো অপেক্ষা করেছেন আবার মাঠে ফেরার। ৩৬৫ দিনের ২৯০ দিন শেষ, বাকি রয়েছে আর মাত্র ৭৫ দিন। সাকিবের মতো তার ভক্তরাও হয়তো একইভাবে দিন গুণছেন, আবার কবে বাইশগজে দেখতে পারবেন তাদের প্রিয় মুখকে। 

করোনাপরবর্তী সময়ে শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজ দিয়েই আবারো মাঠে ফিরবে বাংলাদেশ। এই সিরিজ দিয়ে মাঠে ফিরতে পারেন সাকিবও। ৭৫ নম্বর জার্সিধারী ব্যক্তিটি আবার যখন বল করবেন, প্রতিটি উইকেট শিকারের সঙ্গে সঙ্গে আনন্দে চিৎকার করে উঠবেন তার ভক্তরাও। প্রতিটি বাউন্ডারি-ওভার বাউন্ডারিতে বল সীমানার ওপারে যাওয়ার আগে হয়তো দু-এক ফোঁটা অশ্রু গড়িয়ে পড়বে কারো চোখ থেকে। তবে এ যে আনন্দের অশ্রু, যেখানে কষ্টের চেয়ে সুখটাই বেশি। 

সাকিব আল হাসাননিষেধাজ্ঞার বাকি থাকা ৭৫ দিন শেষে দ্রুততম সময়ে মাঠে ফিরবেন সাকিব, আবারো লাল সবুজের জার্সি গায়ে হাসতে হাসতে বাঁহাতের তর্জনী আঙ্গুল নাচাবেন এমন দিনের অপেক্ষায় এখন সাকিবসহ কোটি ক্রিকেটপ্রেমী। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল