আম্ফানের আঘাতে লণ্ডভণ্ড বাগেরহাট

আম্ফানের আঘাতে লণ্ডভণ্ড বাগেরহাট

বাগেরহাট প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:৩৭ ২১ মে ২০২০   আপডেট: ২০:৩৮ ২১ মে ২০২০

অধিকাংশ উপজেলায় বিদ্যুৎসংযোগ বিচ্ছিন্ন

অধিকাংশ উপজেলায় বিদ্যুৎসংযোগ বিচ্ছিন্ন

উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের ওপর দিয়েই বয়ে গেছে আম্ফান। একেবারেই লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বেড়িবাঁধ, ঘরবাড়ি ও মৎস্য ঘের। এতোকিছুর পরও সুখবর আছে। এ জেলায় কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বিভিন্ন উপজেলায় সবজি ক্ষেতের। অধিকাংশ উপজেলায় বিদ্যুৎসংযোগ বিচ্ছিন্ন। 

আম্ফানের আঘাতে বসতঘর ভেঙে পড়েছে। জলোচ্ছাসে ভেসে গেছে মাছের ঘের। এরকম ক্ষতি আমার মতো আরো অনেকের হয়েছে। কিভাবে এই ক্ষতি পুষিয়ে নিবো ভেবে পাচ্ছি না। বলছিলেন কচুয়া উপজেলার ৭নং ওয়ার্ডের তুহিন শিকদার।

শরণখোলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজমল হোসেন মুক্তা বলেন, আম্ফানের আঘাতে সাউথখালী, দক্ষিণ সাউথখালী, তেরাবেকা, বগী, গাবতলীসহ কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। শতাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি পড়ে গেছে, উড়িয়ে নিয়ে গেছে ঘরের টিনের ছাউনি। উপড়ে পড়েছে অসংখ্য গাছপালা। নদীর পানির চাপে বেড়ি বাঁধের কয়েকটি স্থানও ভেঙে গেছে। 

বাগেরহাট জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. খালেদ কনক জানান, ঝড়ে ৪ হাজার ৬৩৫টি মৎস্য ঘের ভেসে গেছে। বেশি ক্ষতি হয়েছে মোংলা, রামপাল, শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ ও উপজেলায়। এতে জেলার কয়েক হাজার চিংড়ি চাষির ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। 

ডিসি মামুনুর রশীদ জানান, সরকার বাগেরহাট জেলার জন্য ২০০ মেট্রিক টন চাল, নগদ ৩ লাখ টাকা, ২ লাখ টাকার শিশু খাদ্য, গো-খাদ্যের জন্য ২ লাখ টাকা ও ২ হাজার প্যাকেট শুকনা খাবার বরাদ্দ দিয়েছে। জেলার কোথাও কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। বেশ কিছু ফসল, মৎস্য ঘের, কাঁচা ঘরবাড়ি ও গাছপালা, বৈদ্যুতিক খুঁটি ও বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম