Alexa আমার কনফিডেন্স লেভেল সবসময়ই তুঙ্গে: তোরসা  

আমার কনফিডেন্স লেভেল সবসময়ই তুঙ্গে: তোরসা  

নাজমুল আহসান ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:৪৭ ১৫ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ২০:৫৪ ১৫ অক্টোবর ২০১৯

মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ বিজয়ী রাফাহ নানজিবা তোরসা

মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ বিজয়ী রাফাহ নানজিবা তোরসা

রাফাহ নানজিবা তোরসার বয়স যখন তিন সেসময় গুটিগুটি পায়ে হাতেখড়ি নাচের। এর বছর খানেকের মাথায় আবৃত্তি ও ছবি আঁকা শুরু। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে পড়াশোনা করছেন। ২০১০ সালে জাতীয় শিশু-কিশোর প্রতিযোগিতায় ভরতনাট্যম নৃত্যে স্বর্ণপদক লাভ করেন। সে বছরই এনটিভি আয়োজিত প্রতিভা অন্বেষণের প্রতিযোগিতা মার্কস অলরাউন্ডারে অংশ নিয়ে প্রথম রানার আপ হয়েছিলেন তিনি। 

সবশেষ গেল শুক্রবার মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ বিজয়ী হয়েছেন রাফাহ নানজিবা তোরসা। আগামী ডিসেম্বরে যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত মিস ওয়ার্ল্ডের মঞ্চে লাল সবুজের প্রতিনিধিত্ব কবরেন তিনি। সোমবার মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ হওয়ার অনুভূতি, ভবিষ্যত কাজের পরিকল্পনা ও মিস ওয়ার্ল্ডের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন ডেইলি বাংলাদেশ’কে। সেখান থেকে বিশেষ অংশ তুলে ধরেছেন নাজমুল আহসান

মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ হিসেবে নাম ঘোষণার পর অনুভূতি কেমন ছিল?
প্রথমেই বলে রাখতে চাই মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের ফাইনালের মঞ্চে আমরা যে ১২ জন প্রতিযোগী ছিলাম প্রত্যেকের বিজয়ী হওয়ার মতো যোগ্যতা রয়েছে। সবাই অনেক দক্ষ। এরপরেও যখন চ্যাম্পিয়ন হিসেবে আমার নাম ঘোষণা হতে শুনলাম বেশ রোমাঞ্চিত হয়েছি; সঙ্গে এটাও ভেবেছি অনেক দায়িত্ব এসে পড়ল কাঁধে।

আপনিতো আগেই মিডিয়াতে কাজ করেছেন, সেই অভিজ্ঞতা কি এখানে কাজে লেগেছে?
মিডিয়াতে কাজের অভিজ্ঞতা সেভাবে কাজে লাগেনি। তবে সংস্কৃতি পরিমন্ডলে কাজের অভিজ্ঞতা অনেক বেশি কাজে লেগেছে। কবিতা আবৃতি, নৃত্য, থিয়েটার, মুকাভিনয় ইত্যাদিতে আগে থেকেই কাজের কারণে জড়তা অনেকটা আমার মধ্যে কাজ করেনি। 

আপনি একটি ছবিতে পার্শ্ব চরিত্রে কাজ করেছিলেন, সামনে কি প্রধান চরিত্রে কাজের ইচ্ছে আছে?
প্রধান চরিত্রে বা হিরোইন হিসাবে কাজের ইচ্ছে নেই। সিনেমাতে কাজ করলে এমন একটি চরিত্রে কাজ করতে চাই যে চরিত্রটি দেশ ও সমাজ গঠনে ভূমিকা রাখবে। 

শোবিজে কাজের পরিকল্পনা আছে?
এই মূহুর্তে মিডিয়িতে কাজ করার কোনো পরিকল্পনা নেই। আমার প্রধান ফোকাস মিস ওয়ার্ল্ড, বিউটি এবং শিক্ষা নিয়ে কাজ করতে চাই। ১১ বছর বয়স থেকে আমি লায়ন ফাউন্ডেশনের অধীনে এডুকেশন ফর লাইফসহ বিভিন্ন ধরনের সামাজিক কাজ করে আসছি। পাশাপাশি সমাজ সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে চাই। আর মিস ওয়ার্ল্ডের মাধ্যমে দেশকে আন্তর্জাতিকভাবে উপস্থাপন করাই আমার মূল লক্ষ্য। 

মিস ওয়ার্ল্ডের জন্য আপনার কনফিডেন্সের জায়গা কতটুকু এবং প্রস্তুতি কেমন?
আমি খুবই পজেটিভ মানুষ। আমার কনফিডেন্স লেভেল সবসময়ই তুঙ্গে, তবে অভার কনফিডেন্স নয়। আমি মনে করি আপনি যখন কোথাও ফোকাস থাকবেন তখন অধ্যবসায়, সততা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমি মনে করি এসব দিক গুলো আমার মধ্যে আছে। মিস ওয়ার্ল্ডে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের চ্যাম্পিয়নরা লড়বেন। সেখানে প্রতিযোগিতা করার জন্য নিজের দুর্বলতা পূরণ করার চেষ্টা করব। লক্ষ্য নিয়ে এগোতে চাই। আর আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই যাতে বিশ্বমঞ্চে নিজের দেশের সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখতে পারি।

নিজের কাছে আপনার সবচেয়ে বড় শক্তি কি?
বিভিন্ন ধাপে বলতে গেলে আমার সবচেয়ে বড় শক্তি ‘আমি একজন সৎ মানুষ’। আমার সামনে কখনো যদি বাজে কিছু গ্রাস করতে চায়, তখন আমি শান্ত থাকার চেষ্টা করি। আর সততার সঙ্গে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করি। আরো একটি বড় শক্তি আমার রয়েছে, সেটি হচ্ছে- আমার মায়ের দোয়া।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনএ