Alexa আজান ও ইক্বামতের উত্তরে রয়েছে যেসব ফায়দা

আজান ও ইক্বামতের উত্তরে রয়েছে যেসব ফায়দা

ধর্ম ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:০৯ ১২ নভেম্বর ২০১৯  

প্রতিদিনই আমরা আজান ও নামাজের সময় ইক্বামত শুনে থাকি। আজান ও ইক্বামতের উত্তর দেয়ার মাধ্যমে আমাদের গোনাহ মাফ, নিশ্চিত জান্নাত লাভ এবং মনের একান্ত চাওয়াগুলোর পরিপূর্ণতা নিশ্চয়তা রয়েছে।

আজান হলো নামাজের জন্য আহ্বান করা। আর নামাজ শুরুর ঠিক আগ মুহূর্তেই দেয়া হয় ইক্বামত। 
প্রিয় নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আজানের পর মুমিন মুসলমানের জন্য কিছু করণীয় আমলের দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন।

রাসূল (সা.) এর এ দিক-নির্দেশনা পালনে রয়েছে অনেক উপকারিতা। আর সবচেয়ে বড় উপকারিতা হলো বান্দা এ সময়টিতে যা চাইবে তা-ই পাবে। একাধিক হাদিসে প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ রকম অনেক ঘোষণা দিয়েছেন।

> আজান ও ইক্বামতের মধ্যকার সময়টি দোয়া কবুলের অন্যতম সময়। এ সময়ের কোনো চাওয়াই আল্লাহ তায়ালা ফেরত দেন না।

হজরত আনাস ইবনে মালেক রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘আজান ও ইক্বামতের মাঝে যে দোয়া করা হয়, তা ফেরত দেয়া হয় না।’ (মুসনাদে আহমদ, আবু দাউদ)।

> মুয়াজ্জিনের সঙ্গে আজানের শব্দগুলো বলার নির্দেশ দিয়েছেন স্বয়ং বিশ্বনবী (সা.)। অতঃপর তিনি দোয়া করতে বলেছেন। হাদিসে এসেছে- হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, এক ব্যক্তি বললো, হে আল্লাহর রাসূল! মুয়াজ্জিনদের মর্যাদা যে আমাদের চেয়ে বেশি হয়ে যাবে, তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তুমিও তা-ই বলো, মুয়াজ্জিন যা বলে। তারপর আজান শেষ হলে (আল্লাহর কাছে) চাও। (তখন) যা চাইবে তা-ই দেয়া হবে।’ (আবু দাউদ, মেশকাত)।

> আজান ও ইক্বামতের উত্তর দেয়ায় রয়েছে জান্নাত লাভের ঘোষণা। অপর একটি বর্ণনায় এসেছে-
‘মুয়াজ্জিনের সঙ্গে সঙ্গে যে ব্যক্তি আজানের শব্দগুলো বলবে, সে জান্নাতে যাবে।’ (আবু দাউদ, মেশকাত)।

> মুয়াজ্জিনের আজানের জবাব দেয়ার পর তাওহিদ ও রিসালাতের সাক্ষ্য দেয়ার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা বান্দার সব গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন বলেও ঘোষণা দেন বিশ্বনবী (সা.)। হাদিসের এক বর্ণনায় বলা হয়েছে-
‘যে ব্যক্তি আজান শোনার পর বলবে-

أشْهَدُ أَنْ لَّا إلَهَ إلَّا اللهُ وَحْدَهُ لَا شَرِيْكَ لَهُ وَ أشْهَدُ أنَّ مُحَمَّدًا عَبْدُهُ وَ رَسُوْلُهُ رَضِيْتُ بِاللهِ رَبًا وَّبِمُحَمَّدٍ رَّسُوْلاً وَبِالإسْلَامِ دِيْنًا

উচ্চারণ : ‘আশহাদু আললা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসূলুহু; রাদিতু বিল্লাহি রাব্বাও ওয়া বিমুহাম্মাদির রাসূলাও ওয়া বিল ইসলামে দ্বীনা।’

অর্থ : আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, এক আল্লাহ ব্যতিত কোনো উপাস্য নেই, তার অংশীদার নেই। আমি আরো সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর বান্দা ও রাসূল। আমি আল্লাহকে রব হিসেবে এবং মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে রাসূল হিসেবে এবং ইসলামকে দ্বীন হিসেবে মেনে নিয়েছি।
তাহলে তার গোনাহসমূহ ক্ষমা করে দেয়া হবে।’ (মুসলিম, আবু দাউদ, মিশকাত)।

মনে রাখার বিষয়: মুমিন মুসলমানের উচিত আজান শোনার সঙ্গে সঙ্গে আজানের শব্দগুলো যথাযথ উচ্চারণ করা এবং আল্লাহর কাছে একান্ত চাওয়াগুলো লাভে রোনাজারি করা। কেননা তাতে এক দিকে যেমন হাদিসের ওপর যথাযথ আমল হবে অন্যদিকে প্রিয় নবী (সা.) ঘোষিত উপকারিতাগুলো অর্জিত হবে।

মহান রাব্বুর আলামিন আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে দুনিয়া ও পরকালে সফলতা লাভে মনের একান্ত চাওয়াগুলোর পূরণে নিয়মিত আজান ও ইক্বামতের উত্তর দেয়ার তাওফিক দান করুন। চিরস্থায়ী জান্নাতের মেহমান হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে