Alexa আজব এক জাতি! মুখে নেই ভাষা, শিসই ভরসা

আজব এক জাতি! মুখে নেই ভাষা, শিসই ভরসা

কানিছ সুলতানা কেয়া ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৩৩ ৮ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

‘ইস, আমি যদি পাখি হতাম!’ আকাশের দিকে তাকিয়ে আক্ষেপ করে ছোট বেলায় এই কথাটি বলেন নি এমন কেউ কি আছেন? আমাদের ভাবুক মন এখনো কিন্তু মাঝে মাঝেই ডানা মেলতে চায় দূর আকাশে। সেই সঙ্গে এটাও নিশ্চয় ভেবেছেন পাখি হলে অন্যদের সঙ্গে ভাব বিনিময় করব কীভাবে! তবে পাখির কিচিরমিচির শব্দই কিন্তু তাদের ভাষা। 

তবে মজার একটি বিষয় জানেন কি? বিচিত্র এই মানবকুলে এমন এক জাতি আছে যারা পাখির ভাষায় কথা বলে। তারা এক পাহাড়ের উপর থেকে আর এক পাহাড়ে আওয়াজ পাঠায় পাখির ভাষায়। তুরস্ক, স্পেন এবং গ্রিসের প্রত্যন্ত কিছু অঞ্চলে আজো কালের সাক্ষী হয়ে টিকে আছে পাখির ভাষা। এমনকি তাদের কথ্য বা লেখ্য ভাষার সাংকেতিক সংস্করণ হিসেবে পাখির শিসই যোগাযোগের মাধ্যম। এই শিসভাষা যে শুধু বিচ্ছিন্ন কিছু আওয়াজ,তা কিন্তু নয়  বরং অনেক বেশি কাঠামোবদ্ধ ও ব্যাকরণসম্মত। পৃথিবীতে এ পর্যন্ত প্রায় ৭০টি স্বীকৃত শিসভাষা নথিভূক্ত আছে। যাদের অধিকাংশই এখন বিলুপ্ত বা বিলুপ্তির পথে। 
 
কম্পাঙ্কের তীক্ষ্ণতার দরুন শিসের আওয়াজ সহজেই আমাদের শ্রবণেন্দ্রীয় ধরতে পারে। এমনকি কোনো ধরণের তড়িৎ যন্ত্রপাতি ছাড়াই এই আওয়াজ ৪  কিলোমিটার পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে। এজন্য বিস্তীর্ণ কৃষিজীবী জনপদের অন্তঃযোগাযোগে এ ভাষা বেশি প্রচলিত। মরক্কোর অ্যাটলাস বা হিমালয়ের পার্বত্য জনপদ, লাওসের মালভূমি, ব্রাজিলের আমাজন, এমনকি খরা-বিদীর্ণ ইথিওপিয়াতেও মানুষ শিসের সাহায্যে যোগাযোগ করত। গ্রিক পরিব্রাজক হেরোডটাস স্বয়ং ইথিওপিয়ান শিসভাষার সাক্ষী। তার কাছে এ ভাষা ছিলো ‘বাদুড়ের কিচিরমিচির’ এর মতো।   

শিস ভাষাতুর্কির শিস ভাষা

একদিকে পন্টিক পর্বত, আরেকদিকে কৃষ্ণসাগর। এর মাঝে সানাকসি জেলার এক অনিন্দ্য সুন্দর গ্রাম, নাম কুস্কয়। প্রায় ১০ হাজার মানুষের বাস এখানে। চা আর হ্যাজলনাটের বাগানে ছাওয়া গ্রামের কেন্দ্রে সাদা একটা মিনার আর ছোট্ট গম্বুজওয়ালা একটা মসজিদ। আজানের সুমিষ্ট সুরের সঙ্গে ঘন ঘন আপনার কানে ভেসে আসবে পাখির আওয়াজ। কী দিন, কী রাত! সবটা অবশ্য পাখির আওয়াজ নয়। সেখানকার মানুষেরাই পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ করে পাখির ভাষা তথা শিসের সাহায্যে। সেখানকার মানুষের কাছে আদুরে এ ভাষাটির নাম ‘কুসদিলি’, যার অর্থও পাখির ভাষা বা শিস।   

কুসদিলি কিন্তু স্বতন্ত্র কোনো ভাষা নয়। এটি মূলত তুর্কি ভাষা। সব ভাষারই যেমন কথ্য ও লেখ্য রূপ আছে। তেমনি তুর্কির কেবল অতিরিক্ত একটা শিস বা সাংকেতিক রূপ আছে। প্রতিটি বর্ণকে শিসধ্বনির সাহায্যে উচ্চারণ করা হয়। এই প্রক্রিয়ায় যখন পুরো একটি শব্দ উচ্চারণ করা হয়। তখন শব্দটি তুর্কি থাকে বটে, কিন্তু কুস্কয়ের লোকেরা ছাড়া বুঝবে সে সাধ্য কার! তখন শব্দমালাকে পাখির কিচিরমিচির ভাষার মতো  সুমধুর কিছুই মনে হয়।

এখানে স্কুলে এ বাচ্চাদের পাখির ভাষা শেখানো হয়। এমনকি কলেজে পাখির ভাষার উপর ডিগ্রি অর্জন করার জন্য রয়েছে পুরো একটি বিভাগ। ২০১৪ সাল থেকে গ্রামটির প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভাষাটি আনুষ্ঠানিকভাবে শেখানো শুরু হয়। এর আগে ১৯৬৪ সালে টাইমসের একটি প্রতিবেদনে গ্রামটির কথা বলা হয়েছিলো। সেই প্রতিবেদন মতে, গ্রামটির শিশুরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাবার আগেই শিখে নিত এ ভাষা। প্রতি বছর গ্রামটিতে কুসদিলি উৎসব আয়োজন করা হয়। উৎসবে শিস বাজানোর প্রতিযোগিতারও একটি পর্ব থাকে।

শিশুরাও স্কুলে এই ভাষা শেখেঘর থেকে বেরিয়ে কাছের বা দূরের পড়শিকে কুশল জানাতে, ডাকতে কিংবা ঘোষণা দিতে ব্যবহৃত হয় এই ভাষা। ঠোঁটে বিশেষ কায়দায় আঙুল ঢুকিয়ে জিভ-দাঁতের কারিকুরিতে কয়েকটা শিস। ব্যাস, বলা হয়ে গেলো! এই কুসদিলি শোনাও যায় প্রায় পৌনে এক কিলোমিটার দূরত্ব অবধি। ১৯৮৬ সালের আগে এখানে বিদ্যুতও ছিলো না, যোগাযোগে কুসদিলিই ছিলো ভরসা। কিন্তু মোবাইলের যুগে কে আর এত কষ্ট করে! 

প্রযুক্তি এনে দিয়েছে গতি, তবে কেড়ে নিয়েছে অনুভূতি। প্রযুক্তির কল্যাণে বিলুপ্তির পথে যুগ যুগ ধরে টিকে থাকা এই ভাষা। ইউনেস্কোর লিস্ট অব ইনটানজিবল কালচার হেরিটেজ ইন নিড অব আর্জেন্ট  শাফেগুয়ারদিং এ গত বছর যুক্ত হয়েছে কুসদিলি। শুধু কুস্কয়তেই নয়, এই ভাষা মাত্র ৫০ বছর আগেও প্রচলিত ছিলো উত্তর তুরস্কের কৃষ্ণসাগর ঘেষা ত্রাবজোন, রাইজ, ওর্দু, আর্তভিন, বেবুর্ত অঞ্চলে। বর্তমানে সেখানকার মেষপালকদের মুখে মুখে কেবল বেঁচে আছে অল্প কিছু আওয়াজ।  

এই ‘পাখির ভাষা’ নিয়ে বেরিয়েছে একটি আলোচিত গবেষণা প্রতিবেদন। সমীক্ষাভিত্তিক গবেষণাটি করেছিলেন জার্মানির বোকমের ইনস্টিটিউট অব কগনিটিভ নিউরোসায়েন্সের বায়োসাইকোলজিস্ট ওনার গুনতুর্কুন। মস্তিষ্কের বামপাশ ভাষার অর্থদ্যোতকতা অনুধাবন করে। অন্যদিকে আমাদের মস্তিষ্কের ডানপাশ আওয়াজ, সুরের মূর্চ্ছনা, তাল, লয় ইত্যাদি প্রক্রিয়াক্ররণ করে। তাই ব্রেইন স্ট্রোকে কারো মস্তিষ্কের বামপাশ ক্ষতিগ্রস্থ হলে ও মৌখিক যোগাযোগে অক্ষমতা তৈরি হলে তার জন্য ভালো সমাধান হতে পারে এই ‘পাখির ভাষা’। এমনটিই বলছে উক্ত গবেষণা।

সবার মুখেই বাজে শিসস্পেনের শিস ভাষা

স্পেনের ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের লা গোমেরোতে প্রচলিত রয়েছে বিখ্যাত আরেক শিসভাষা। নাম সিলবো গামেরো। সংক্ষেপে সিলবো। সিলবোভাষীদের বলা হয় সিলবাদর। কুসদিলি যে ইউনেস্কো স্বীকৃতি পেয়েছে গত বছর, সিলবো গামেরো সেটি পেয়েছে ২০০৯ সালেই। উত্তর আফ্রিকা থেকে যখন গুয়াঞ্চেসরা এই দ্বীপে পা রাখলো, তখন স্থানীয় আদিবাসী ভাষা থেকে নিজেদের যোগাযোগ উপযোগী একটা সংস্করণ দাড় করিয়ে নিলো তারা। বিশাল দ্বীপে গলা ফাটিয়ে শব্দ উচ্চারণ করবার থেকে শিস দিয়ে যোগাযোগ করা সহজ কি না। প্রায় তিন কিলোমিটার অবধি সিলবাদরদের আওয়াজ পৌঁছাত। ষোড়শ শতকে স্প্যানিশ কাস্তিলিয়ান সাম্রাজ্যের অধিভূক্ত হয় গোমেরো। সেই থেকে এই সিলবো ভাষার সঙ্গে স্প্যানিশও মিশে গেছে। 

১৯৭০-৮০ এর দিকে খুব অল্পসংখ্যক সিলবাদর অবশিষ্ট ছিলেন। এরপর ১৯৯৯ সাল থেকে এখানকার বিদ্যালয়গুলোতে ভাষাটি অবশ্যপাঠ্য করা হলো। ফলাফল পাওয়া গেলো হাতেনাতে, বর্তমানে প্রায় ২২ হাজার লোক এই ভাষায় যোগাযোগ করে থাকেন। সেখানে গেলে দেখবেন- বিদ্যালয়ে, রেস্তোরার সমানে মানুষ সিলবোতে কথা বলছে, ওদিকে পর্যটকেরা মুগ্ধচোখে দেখছে আর শিখছে। লা গোমেরোর পর্যটনমন্ত্রী ফার্নান্দো মেন্ডেজ বলেন, যেভাবে যুক্তরাজ্য তার পর্যটনের সঙ্গে ইংরেজি শিক্ষার সমন্বয় ঘটিয়েছে, যেভাবে ভারত তাদের যোগব্যায়ামকে পর্যটনক্ষেত্রে কাজে লাগাচ্ছে, আমরাও সিলবোকে নিয়ে সেরকম কিছুই করবো। 

শিস ভাষাতেই অভ্যস্ত তারাগ্রিসের শিস ভাষা

গ্রিসেও শিস ভাষা জীবিত আছে। মধ্য গ্রিসের ইউবিয়ার আন্তিয়া গ্রামের বাসিন্দারা এখনো এ ভাষায় কথা বলে থাকেন। এটির আঞ্চলিক নাম স্ফিরিয়া, যার উৎপত্তি গ্রিক শব্দ ‘স্ফিরিজো’ থেকে। যার অর্থ শিস দেয়া। এটিও মূলত গ্রিক ভাষারই সাংকেতিক রূপ। অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে আন্তিয়াবাসী এটি ব্যবহার করেন, যেমন- কুশল বিনিময়, নিমন্ত্রণ প্রদান, বাজার-সদাইয়ের বিষয়আশয় ইত্যাদি। 

সিলবোর মতো কম্পাঙ্কের ওঠা-নামা দিয়ে আবেগের প্রকাশ এ ভাষায় নেই। তবে এটি মোটামুটি আবেগের বহিঃপ্রকাশের একটি পদ্ধতি। বিশ্বের অনেক স্থানের শিসভাষীরা প্রেমের আহবান, ঘনিষ্ঠতা বা গোপন মুহূর্তের কথাবার্তা ইত্যাদি সময়ে শিসভাষা ব্যবহার করে। কিন্তু আন্তিয়ার মানুষ খুবই রক্ষণশীল। প্রেম জাতীয় বিষয়কে তারা স্ফিরিয়া থেকে দূরে রাখেন। তীক্ষ্ম শিস বাজাতে দরকার মজবুত দাঁত। তাই শিস দিতে গিয়ে বিপাকে পড়েন আন্তিয়ার বৃদ্ধরা। ফোকলা দাঁতে হাসিকার্য চালানো গেলেও শিস যে বড্ড দুরূহ!  

তরুণরা ধীরে ধীরে পাড়ি জমাচ্ছে পাশের এভিয়া বা রাজধানী এথেন্স শহরে। ওদিকে বুড়োরা পাড়ি জমাচ্ছে গ্রামের ছোট্ট চার্চের গোরস্থানে। হতাশ হবেন জেনে যে, বর্তমানে মাত্র ৩৭ জন বাসিন্দা অবশিষ্ট আছেন গ্রামটিতে। এদের মধ্যেও মাত্র ২০-২২ জনের এ ভাষা সম্পূর্ণ আয়ত্বে আছে। ভাষাবিদদের মতে, এটিও অন্য ভাষাগুলোর মতো বিলুপ্তপ্রায় একটি ভাষা বটে। তুরস্ক ও সাইবোর ইউনেস্কো স্বীকৃতি মিললেও মিলেনি স্ফিরিয়ার। 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস