দূরবীনপ্রথম প্রহর

আচরণবিধি মানছেন না প্রার্থীরা

ইদ্রিস আলমডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ি নির্বাচনী প্রচারণা সামগ্রী সরিয়ে ফেলার সময়সীমা শেষ হলেও এখনো রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় দেখা যাচ্ছে ব্যানার, বিলবোর্ড ও পোস্টার। এসব দেখে যেন মনে হয় নির্বাচনী হাওয়ায় ভাসছে রাজধানী।

এদিকে, নির্বাচনী সামগ্রী সরাতে এইরমধ্যে মাঠে নেমেছে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন। এখন থেকে যে প্রার্থীর প্রচারসামগ্রী পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে আচরণবিধি অনুযায়ী প্রচারণা কেন্দ্রীক সব পোস্টার, ব্যানার ও প্রচারসামগ্রী ১৮ নভেম্বর মধ্যরাতের মধ্যে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দিয়েছিলো নির্বাচন কমিশন। কমিশনের বেঁধে দেয়া সময়সীমা শেষ হলেও এখনো রাজধানী থেকে অপসারণ করা হয়নি সব ধরণের প্রচারসামগ্রী।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, এখনো বিভিন্ন জায়গায় ব্যানার, বিলবোর্ড রয়েছে। এছাড়া রাস্তার পাশে বিভিন্ন দেয়াল ও যানবাহনে দেখা মিলছে নির্বাচনী পোস্টার।

এসব প্রচার সামগ্রী সরাতে দুই সিটি কর্পোরেশনের একাধিক ভ্রাম্যমান টিম মাঠে নেমেছে। যেসব প্রার্থীর প্রচারণা সামগ্রী পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা (ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন) বলেন, নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দায়ে ছয় মাসের কারাদণ্ড ও সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা জরিমানার পাশাপাশি প্রার্থিতা বাতিলের ক্ষমতাও রয়েছে নির্বাচন কমিশনের হাতে।

সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, তারা শতভাগ অপসারণ করার পর আবারো এসব সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। ওই সব ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে কমিশন।

সরেজমিন রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, আগাম প্রচারণার তালিকায় এগিয়ে নৌকার প্রার্থীরা। তবে পিছিয়ে নেই ধানের শীষ ও লাঙলের প্রার্থীরাও। প্রায় রাজধানীর সব জায়গাতে দেখা মিলছে প্রচারণা সামগ্রী। তবে এদের মধ্য অনেকে নিজ নিজ দল থেকে মনোনয়ন পাইনি। তাই নিজ থেকে কেউ সরাতে চাইছে না এই প্রচারণা সামগ্রী।

যদিও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরির জন্য নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ সব প্রার্থী মেনে চলুক এমনটাই চাইছেন নগরবাসী। পাশাপাশি প্রশাসনকেও উদ্যোগী হওয়ার তাগিদ দেন তারা।

কমান্ডার জাহীদ হোসেন (প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপক, দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন) জানান, নির্বাচনী ব্যানার-পোস্টার অপসারণ করা হলেও আবারো সেসব টাঙানো হচ্ছে। এগুলো সরাতে বিভিন্ন এলাকায় বাধার মুখে পড়তে হচ্ছে।

জানা যায়, নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে সংশ্লিষ্ট প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এরইমধ্যে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করেছেন নির্বাচন কমিশন। তবে এখনো কারো জরিমানা হয়েছে বলে জানা নেই।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ি এলাকায় এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, নির্বাচনী আচরণবিধি অমান্য করে ক্ষমতাসীন দলের নির্বাচনী মহড়া চলছে। যে যেভাবে পারছে নৌকার প্রচারণা চালাচ্ছে। যা সম্পূর্ণ নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের শামিল।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/এমআরকে/শান্ত

daily-bd-hrch_cat_news-56-10