অসামাজিক কাজে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে পৈশাচিক নির্যাতন

অসামাজিক কাজে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে পৈশাচিক নির্যাতন

সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৩১ ২৭ মে ২০২০   আপডেট: ২২:০০ ২৭ মে ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নওগাঁর সাপাহার উপজেলার হাঁপানিয়া বেলডাঙ্গা গ্রামে অসামাজিক কাজের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে রাজি না হওয়ায় এক গৃহবধূর চুল কেটে তার ওপর চালানো হয়েছে পৈশাচিক নির্যাতন। এ অভিযোগ উঠেছে বর্বর স্বামী-শাশুড়ির বিরুদ্ধে।

নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূর নাম জেসমিন আক্তার। অভিযুক্ত স্বামী আব্দুর রফিক উপজেলার হাঁপানিয়া বেলডাঙ্গা গ্রামের জাহান আলীর ছেলে। 

প্রায় দেড় বছর আগে রফিকের সঙ্গে বিয়ে জেসমিনের। বিয়ের পর থেকেই তাদের সংসারে ঝগড়া চলে আসছিল। তারই জেরে আব্দুর রফিক গত রোববার রাতে জেসমিনকে অসামাজিক কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে বলে। এতে জেসমিন রাজি না হওয়ায় স্বামী রফিক ও শাশুড়ি রাজিয়া মিলে তার ওপর পৈশাচিক নির্যাতন চালায়। প্রথমে তারা জেসমিনের মাথার চুল কেটে দেয়। পরে জেসমিনের ওপর চলে শারীরিক নির্যাতন। সারা রাত নির্যাতনের পর পরের দিন তাকে বাড়িতে আটকে রাখেন তারা। 

সোমবার সকালে সুযোগ বুঝে জেসমিন বাড়ি থেকে বেরিয়ে এলে স্বামী ও শাশুড়ি আত্মগোপন করেন। সংবাদ পেয়ে মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রফিক ও তার মাকে খুঁজে পায়নি। বর্তমানে জেসমিন সাপাহার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন।

এ বিষয়ে সাপাহার থানার ওসি আব্দুল হাই জানান, বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত আছেন। নির্যাতিত নারী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বর্তমানে তার কোনো অভিভাবক না থাকায় কোনো মামলা হয়নি। তবে আগামীকাল তার বাবা চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থেকে সাপাহারে এলে মামলা করা হবে।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ