Alexa অর্থাভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীর 

অর্থাভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীর 

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:০২ ৮ ডিসেম্বর ২০১৯  

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

কুড়িগ্রামের রৌমারী রৌমারী উপজেলার বন্দবেড় ইউপির বন্দবেড় গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিনের স্ত্রী ওহেজা বেগমের অর্থাভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না। 

তিনি এখন বেসরকারি রংপুর ডক্টরস ক্লিনিকের ৭ম তলার ৭০৪ নম্বর কক্ষে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছেন। তাকে এখানে  চিকিৎসা দিচ্ছেন ডাক্তার সমরেষ চন্দ্র সাহা।

তার মেয়ে নার্গিস আকতার কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, গত ৫ ডিসেম্বর সকালের দিকে নিজ বাড়িতে আমার মা ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। পরে অসুস্থ অবস্থায় মাকে রৌমারী উপজেরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করাই। এখানে অবস্থার অবনতি হলে ডাক্তারের পরামর্শে শনিবার রংপুর ডক্টরস ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। অর্থের অভাবে আমার মায়ের চিকিৎসা করা সম্ভব হচ্ছে না।

অসুস্থ ওহেজা বেগমের ভাতিজা জাহিদ হাসান বলেন, আমার চাচিকে রংপুর ডক্টরস ক্লিনিকে ভর্তি করার পর ওষুধ, পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ এ পর্যন্ত ২০ হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে। এসব টাকা পরিবার থেকেই ধার দেনা করে দেয়া হচ্ছে। এখানে প্রতিদিন টাকা লাগে।

মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন ২০১৫ সালে মারা যান। তার ঘরে স্ত্রী ওহেজা বেগম ও একমাত্র মেয়ে নার্গিস আকতার। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে যে সম্মানী ভাতা পান তা দিয়ে চলত তাদের সংসার। 

সংসারে একমাত্র মেয়ে সন্তান ছাড়া অন্য কেউ না থাকায় এই টাকা দিয়ে কোনোভাবে জীবিকা নির্বাহ করতেন। মুক্তিযোদ্ধা জীবিত থাকাবস্থায় অসুস্থ হয়ে পড়লে অন্যের কাছে ধার-দেনা করে তার চিকিৎসা করা হতো। 

তিনি মারা যাবার পর সম্মানী ভাতার টাকাগুলো স্ত্রী ওহেজা বেগম তার স্বামীর নেয়া ধারের টাকা পরিশোধ করেন। চার বছরের মাথায় তিনিও ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। 


 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ