অবসরেও ব্যস্ত তাসফিয়া, ঘরে বসেই মাসিক আয় ৮৬ হাজার টাকা

অবসরেও ব্যস্ত তাসফিয়া, ঘরে বসেই মাসিক আয় ৮৬ হাজার টাকা

আদনান সাকিব, চট্টগ্রাম ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:২১ ৩ জুলাই ২০২০  

তাসফিয়া আজিম

তাসফিয়া আজিম

দক্ষতার নেই কোনো অবসর। এরই উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন চট্টগ্রামের অদম্য নারী তাসফিয়া আজিম। করোনা পরিস্থিতিতে দেশের অধিকাংশ তরুণ-তরুণী যেখানে অলস সময় পার করছেন। সেখানে এই মেধাবী নারী সেই সময়কে দক্ষতা দিয়ে পরিণত করেছেন কর্মঘণ্টায়। ঘরে বসেই আয় করছেন কাঙ্ক্ষিত উপার্জন। 

মাত্র ১৫ ডলারে কাজে পথচলা শুরু এই নারীর। প্রবল ইচ্ছাশক্তিতে তার সে মাসিক আয় এখন দাঁড়িয়েছে ৮৬ হাজার টাকায়।

গত এক দশক ধরে ব্যবসায় তরুণদের পদচারণা ইতিবাচক হারে বেড়ে চলছে। এর প্রধান কারণ তরুণরা বর্তমানে নিজ নিজ চিন্তা-ভাবনাগুলোকে সঠিকভাবে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে। অপর দিকে ইন্টারনেটের ব্যাপক প্রসার। যার কারণে মানুষ খুব সহজেই তাদের চিন্তা-ভাবনাগুলোকে পুরো পৃথিবীতে ছড়িয়ে দিতে পারছেন। তাদেরই একজন চট্টগ্রামের মেয়ে তাসফিয়া।

তাসফিয়া আজিম চট্টগ্রামের প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে স্নাতক করেছেন। আরলি চাইল্ডহুড ডেভেলপমেন্ট বিষয়ে স্নাতকোত্তর করছেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে। ইংরেজির প্রশিক্ষক হিসেবে আছেন ভাষা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্পিকার্স কাউন্সিলে।

বাংলাদেশে বসেই তাসফিয়া মানবসম্পদ নির্বাহী হিসেবে কাজ করেন যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ডিজিটাল বিপণন প্রতিষ্ঠান ভাইপার মিডিয়ায়। ২০১৮ সাল থেকে তিনি এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আছেন। এসইওর (সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন) কাজও করেন তিনি। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আরেকটি প্রতিষ্ঠান রব শো আউটডোর লাইটিংয়ের সঙ্গে যুক্ত আছেন। এই প্রতিষ্ঠানে তিনি ভার্চ্যুয়াল সহকারী।

২০১৩ সালেই ফ্রিল্যান্সার ডটকমের মাধ্যমে তাসফিয়ার কাজ শুরু। পরে যুক্ত হন আপওয়ার্কে। সেখানে বিভিন্ন সাক্ষাৎকারের পর সপ্তাহখানেকের মধ্যে কাজ পেয়ে যান তিনি। প্রথম কাজটি ছিল ছবি সম্পাদনা করার। একটি ওয়েবসাইটের জন্য বেশ কিছু ছবি সম্পাদনা করে পান ১৫ ডলার। এটিই ছিল প্রথম আয়। এখন তাসফিয়ার আয়ত্বে ছবি সম্পাদনা, লেখালেখি, ধারা বর্ণনা (ভয়েস ওভার), অনুবাদ, লোগো ব্যানার তৈরি, এসইও, ডিজিটাল মার্কেটিং, ওয়েবসাইট তৈরি, অ্যাপ ডিজাইনসহ নানা ক্ষেত্র। আপওয়ার্কে একসময় প্রচুর কাজ করেছেন। এখন অবশ্য নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করেন বলে আপওয়ার্কে সময় দেয়া হয় না। তাসফিয়ার বিশ্বাস, কাজ জানলে সামনে যত বিপত্তিই আসুক, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। একটা না একটা পথ হয়েই যাবে।

তাসফিয়া বলেন, চাকরির বাজারে লোকজনের অভাবে অনেকেই বেকার হয়ে ঘুরে বেড়ান। চাকরি করতে হবে এই চিন্তা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। যদি দক্ষতা থাকে তাহলে কাজের অভাব নেই। এমন একটা সময়ে আমরা বেড়ে উঠছি যে সময়টা গোটা বিশ্বই হাতের মুঠোয়।

তাই কাজে দক্ষতা অর্জন করে ঘরে বসেই আয় করা সম্ভব। ফলে একদিকে যেমন বেকারত্ব কমবে তেমনিভাবে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল হবে।

তিনি আরো বলেন, নিজেদের আইডিয়াগুলোকে সঠিক সময়ে, সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারলে, সাফল্য কঠিন কিছু নয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ