অন্য মেয়েকে বিয়ে করছেন প্রেমিক, বিষের বোতল নিয়ে হাজির প্রেমিকা

অন্য মেয়েকে বিয়ে করছেন প্রেমিক, বিষের বোতল নিয়ে হাজির প্রেমিকা

জামালপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০২:৩৪ ১১ আগস্ট ২০২০  

প্রেমিক কার্তিক সূত্রধর ও তার অনশনরত প্রেমিকা

প্রেমিক কার্তিক সূত্রধর ও তার অনশনরত প্রেমিকা

জামালপুরে দেওয়ানগঞ্জে অন্য মেয়ের সঙ্গে প্রেমিকের বিয়ের খবর শুনে বিষের বোতল হাতে হাজির হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক তরুণী। দুইদিন ধরে প্রেমিকের বাড়ির সামনে অনশন করছেন। প্রেমিক বিয়ে না করলে বিষপানে আত্মহত্যার হুমকিও দিয়েছেন তিনি। এ ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

রোববার সকালে দেওয়ানগঞ্জ পৌর শহরের কালিকাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রেমিক কার্তিক সূত্রধর ওই এলাকার মিলন সূত্রধরের ছেলে।

জানা গেছে, প্রেমিকার অনশনের খবর পেয়ে আগেই বাড়িতে তালা ঝুলিয়ে পরিবার নিয়ে পালিয়েছেন প্রেমিক কার্তিক। এমন পরিস্থিতিতে ওই তরুণীর পাশে দাঁড়িয়েছে স্থানীয়রা। তারা কার্তিক সূত্রধরের সঙ্গে তার বিয়ে দেয়ার জন্য পরিবারকে চাপ দেয়।

ওই তরুণী জানান, ২০১৭ সাল থেকে কার্তিক সূত্রধরের সঙ্গে তার প্রেম। এক পর্যায়ে তাদের প্রেম রূপ নেয় শারীরিক সর্ম্পকে। কার্তিক দীর্ঘদিনের সর্ম্পকে অনেকবার বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে জড়ান। এমনকি স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বিভিন্ন হোটেলে অনেকবার রাতও কাটিয়েছেন তারা। কিন্তু কার্তিকের পরিবার তাদের সর্ম্পক মেনে না নিয়ে সরিষাবাড়ীর এক তরুণীর সঙ্গে ছেলের বিয়ে ঠিক করে।

তিনি আরো জানান, খবর পেয়ে রোববার সকালে ছুটে এলে তাকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে বের করে দেয় কার্তিকের পরিবার। এরপর তারা ঘরে তালা ঝুলিয়ে পালিয়ে যায়। এ কারণে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করছেন তিনি। কার্তিকের সঙ্গে বিয়ে না হলে বিষপানে আত্মহত্যার হুমকিও দিয়েছেন ওই তরুণী।

দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র সেলিনা আক্তার জানান, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে মেয়েটির সঙ্গে অনেকবার শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়েছে কার্তিক সূত্রধর। এখন বিয়ে করতে চাচ্ছে না। উল্টো মেয়েটিকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে। পরে স্থানীয়রা তাকে বাড়িতে উঠিয়ে দেয়।

দেওয়ানগঞ্জ থানার ওসি এম.এম মায়নুল ইসলাম বলেন, সরিষাবাড়ী থানায় কল করে ওই বিয়ে বন্ধ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ওই তরুণী তার প্রেমিকের বাড়িতেই আছে। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর