অদ্ভূত সব চাকরি!

অদ্ভূত সব চাকরি!

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২২:৪৮ ৩ জুন ২০১৯  

সংগৃহিত

সংগৃহিত

বেঁচে থাকতে জরুরি জীবিকার সন্ধান। তাই জীবন যাপনে মানুষ যোগ্যতার বিচারে বেছে নেন বিভিন্ন পেশা। কিন্তু শুনলে অবাক হবেন পৃথিবীতে এমন অনেক চাকরি আছে, যা লাখ টাকায়ও করতে ইচ্ছা হবে না। ব্লুগ্যাপ ওয়েবসাইটে বিশ্বের অদ্ভূত এমন সব পেশার কথা উল্লেখ রয়েছে। 

পোষা জীবজন্তুর খাবার পরীক্ষক: অবাক হবেন, বিশ্বে এমন অনেক দেশ আছে যেখানে কুকুর-বিড়ালের খাবার আগে মানুষকে খাইয়ে পরীক্ষা করে নেয়া হয়। আমেরিকা, ইংল্যান্ড, ফ্রান্সসহ অন্যান্য দেশে জীবজন্তুর খাবার উৎপাদক কোম্পানি পরীক্ষক হিসেবে মানুষকে চাকরি দেয়া হয়। তারা খাবারটি তৈরি হওয়ার পর টেস্ট করে দেখেন কুকুর/বিড়াল তা পছন্দ করবে কি না? খাবারটি ঠিকমতো তৈরি করা হয়েছে কি না এবং স্বাস্থ্যসম্মত কি না, তাও খেয়ে পরীক্ষা করে দেখবেন পরীক্ষক। একবার ভেবে দেখুন, বড় বেতনে আপনি যদি এমন একটি চাকরির অফার পান তাহলে কি করবেন?

বমি পরিষ্কারকারী: বিভিন্ন শিশুপার্কে নানা ধরনের রাইড থাকে। আতঙ্ক থাকা সত্ত্বেও এসব রাইডে চড়ার লোভ সামলাতে পারেন না অনেকে। সেসবে এমন কিছু রাইড আছে, যাতে চড়লে বমি হয় না এমন মানুষ কমই আছে। তাদের তো আর চিন্তা নেই। বমি করেই খালাস। শুনলে অবাক হবেন, সেসব বমি পরিষ্কারের কাজটি করে কেউ কেউ জীবিকা নির্বাহ করেন। তাদের শুধু বমি পরিষ্কারের জন্যই রাখা হয়। এসব কর্মজীবীরা কোনো রকম অস্বস্তিবোধ ছাড়াই কাজটি করেন।

ডিওডোরেন্ট পরীক্ষক: প্রতিদিনই বাজারে আসছে নতুন নতুন সুগন্ধি। আর তা লুফে নিচ্ছেন আপনি। কিন্তু কখনো ভেবে দেখেছেন ওই সুগন্ধি টেস্টারের কাজটি যিনি করেন তার প্রতিদিনের অনুভূতি কেমন? এটি খুবই উদ্ভত পেশা। এ পেশার মানুষদের দিনের পুরো সময়টা অন্যের শরীরের ডিওডোরেন্টের ঘ্রাণ পরীক্ষা করতে হয়। কোন ফ্লেবারটি আপনার জন্য ভালো হবে, তা খুঁজে দেন তারা। সুতরাং, কতটা ধৈর্য থাকলে কারো পক্ষে এমন চাকরি করা সম্ভব?

ভাড়া প্রেমিকের চাকরি: আপনার কী কোনো প্রেমিক আছে?  না থাকলে প্রেমিক ভাড়া করতে পারবেন। ছবি এবং ভাড়াসহ এমন সব লোভনীয় বিজ্ঞাপন ইন্টারনেটে হরহামেশাই চোখে পড়বে। তবে এটি বেআইনি কাজ নয়। জাপান, চিন, আমেরিকা, ইউরোপ ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দেশগুলোতে প্রেমিক ভাড়া দেয়া হয়ে থাকে, যা সেসব দেশে আইনসম্মত। যেখানে টাকার বিনিময়ে প্রেমিক ভাড়া দেয়া হয়। পেশাটি সত্যিই অদ্ভূত!

প্রোফেশনাল পুশার: চিন্তা করুণ তো, আপনি কোথাও দাঁড়িয়ে আছেন এমন সময় কয়েকজন এসে আপনাকে ধাক্কা দিচ্ছেন। এমনটা কেউ করলে কতটা মেজাজ খারাপ হবে, একবার ভেবে দেখুন তো? অথচ ধাক্কা দেয়ার কাজটি কারো কারো পেশা। জাপান ও নিইউয়র্ক সিটিতে রেলওয়েস্টেশনে ভিড়ের সময় প্রোফেশনাল পুশার দিয়ে ট্রেনের ভেতর যাত্রী উঠানো হয়। আগে এটি স্টুডেন্টদের জন্য পার্টটাইম চাকরি ছিল। এখন ফুল টাইম চাকরি হিসেবে অনেকেই নিচ্ছে বেছে।

ওয়াটার স্লাইড পরীক্ষক: ওয়াটার কিংডমে গিয়ে পানির মধ্যে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আনন্দ করছেন। ওয়াটার স্লাইড দিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে নিচে নামছেন। কোনো ধরনের দুর্ঘটনার মুখোমুখি হচ্ছেন না। এর কারণ ওয়াটার স্লাইড পরীক্ষক। আপনাকে সুস্থ রাখতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওয়াটার স্লাইড টেস্টার আগে থেকেই স্লাইডটি পরীক্ষা করে প্রস্তুত করেন। স্লাইডে কোনো ধরনের দুর্ঘটনা হওয়ার আশঙ্কা আছে কি না- এটা দেখার দায়িত্ব তাদের।

ডেইলি বাংলাদেশ/এলকে